ঢাকা | এপ্রিল ১৬, ২০২৪ - ৪:২৮ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম

যাত্রাবাড়ী আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ : দুদকের জালে মোল্লা সজল

  • আপডেট: Wednesday, March 22, 2023 - 3:38 pm
  • পঠিত হয়েছে: 116 বার

নিজস্ব প্রতিবেদক:শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে আদায় করা টাকা থেকে দৈনিক জমা-খরচ বইয়ে কম দেখানো, শিক্ষকদের পিএফ ফান্ডের টাকা অ্যাকাউন্টে জমা না দেয়া, কাল্পনিক ঋণ গ্রহণ ও ভুয়া ঋণ পরিশোধ দেখানো ও ভুয়া ভাউচারের মাধ্যমে যাত্রাবাড়ী আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের ৫ কোটি ১৪ লাখ ৮ হাজার ২০০ টাকা আত্মসাৎ করে দ্দুকের জালে ফেঁসে গেছেন সাবেক গভর্নিং বডির সভাপতি মশিউর রহমান মোল্লা সজলসহ অত্র প্রতিষ্ঠানের ৬ শিক্ষক ও কর্মকর্তা। তিনি ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ঢাকা-৫ আসনের প্রয়াত এমপি হাবিবুর রহমান মোল্লার গুণধর পূত্র। সজলের বিতর্কিত কর্মকান্ডের ঘটনায় আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ বিব্রতবোধ করছেন।

সম্প্রতি যাত্রাবাড়ী আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অর্থ আত্মসাতের মামলায় চার্জশীট দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন। ওই চার্জশিটে নাম থাকা অন্যরা হলেন- যাত্রাবাড়াী আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ আবু ইউসুফ, অফিস সহকারী শহিদুল ইসলাম, সাবেক শিক্ষক প্রতিনিধি ও বর্তমানে ইংরেজি শিক্ষক আব্দুর রউফ মোল্লা, সাবেক শিক্ষক প্রতিনিধি ও বর্তমানে ইংরেজি শিক্ষক অহিদুল ইসলাম এবং সাবেক শিক্ষক প্রতিনিধি ও বর্তমানে প্রাথমিক শাখার শিক্ষক অহিদা খানম। তার মধ্যে অফিস সহকারী শহিদুল ইসলাম অবসরে চলে গেছেন। তদন্ত শেষে আদালতে চার্জশিটটি দাখিল করেছেন দুদকের উপ পরিচালক হাফিজুল ইসলাম। এরআগে ২০১৯ সালে উপসহকারী পরিচালক মোহাম্মদ নুর আলম সিদ্দিকী মামলাটি দায়ের করেন।

স্কুলে এখনও কর্মরত চার্জশিটভুক্ত তিন শিক্ষকের বিষয়ে বর্তমান অধ্যক্ষ মরিয়ম বেগম একটি গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমরা অফিশিয়ালি চার্জশিটের বিষয়টি জানি না। এখনও কোনো কিছু আসেনি। জানার পর ব্যবস্থা নেয়া হবে। সম্ভবত ২০১৩ কিংবা ২০১৪ সালে কলেজ শাখা চালু করা হয়।’

মুজিব কিল্লা নির্মাণ, সংস্কার ও উন্নয়ন প্রকল্প পরিচালক (যুগ্মসচিব) ও যাত্রাবাড়ী আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের গভর্নিং বডির বর্তমান সভাপতি জানে আলম বলেন, ‘আমার কাছে খবরটি এখনও আসেনি। অফিসিয়ালি জানার পর পরিপত্র অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। স্কুল অ্যান্ড কলেজের ক্ষেত্রে গভর্নিং বডিই থাকে। ম্যানেজিং কমিটি থাকে না। শুধু স্কুল হলে ম্যানেজিং কমিটি থাকে। গত জানুয়ারি মাসে আমি দায়িত্ব নিয়েছি।

চার্জশিটের তথ্যানুযায়ী, ২০১২ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ২০১৭ সালের ২০ মার্চ সময়ে দৈনিক আদায় রেজিস্টার অনুযায়ী বিভিন্ন তারিখে মোট ৬ কোটি ৮৭ লাখ ৯৭ হাজার ৯৫৫ টাকা আদায় করা হয়। কিন্তু, জমা-খরচ খাতায় ওই সময়ে ৬ কোটি ৫২ লাখ ১০ হাজার ৭৯৮ টাকা জমা দেখানো হয়। এতে ছাত্র-ছাত্রীদের থেকে আদায় করা ৩৫ লাখ ৮৫ হাজার ৪৪ টাকা কম দেখিয়ে আত্মসাৎ করা হয়। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের ভবিষ্যৎ তহবিলে (পিএফ) জমা দেয়ার জন্য স্কুলের নামে সোনালী ব্যাংক যাত্রাবাড়ী শাখার অ্যাকাউন্ট থেকে ২০১৫ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি তারিখে ১১ লাখ ৮৯ হাজার ৩০৫ টাকা উত্তোলন করা হয়। এই টাকা ভবিষ্য তহবিলের ব্যাংক হিসাবে জমা না দিয়ে অধ্যক্ষ আবু ইউসুফ ও প্রধান হিসাবরক্ষক শহিদুল ইসলাম অন্যান্য আসামিদের সঙ্গে যোগসাজশে আত্মসাৎ করেছেন।

অনুসন্ধানে দেখা যায়, ২০১২ সালের ১ জানুয়ারি তারিখে দৈনিক জমা-খরচ বই অনুসারে নগদ কোনো স্থিতি ছিল না। কিন্তু স্কুলের নামে সোনালী ব্যাংক যাত্রাবাড়ী শাখার অ্যাকাউন্ট অনুযায়ী ওই তারিখে ২ লাখ ৪০ হাজার ৫৫৮ টাকা ব্যাংক স্থিতি ছিল। জমা-খরচ বই ও মাসিক আয়-ব্যয়ের হিসাব বিবরণী মোতাবেক ২০১২ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৭ সালের মার্চ পর্যন্ত সময়ে মোট আয় ২৮ কোটি ৩২ লাখ ২৩ হাজার ৭৫৮ টাকা এবং মোট ব্যয় ২৪ কোটি ২৩ লাখ ৮৫ হাজার ৭৩৪ টাকা। সেই হিসেবে মোট উদ্বৃত্তের পরিমাণ ৪ কোটি ১০ লাখ ৭৬ হাজার ৬১২ টাকা। ২০১৭ সালের মার্চ মাসে নগদ জমা-খরচের খাতা অনুযায়ী নগদ স্থিতি ১ কোটি ১৪ লাখ ৯৪ হাজার ৫৪৪ টাকা এবং ব্যাংক হিসাব বিবরণী অনুযায়ী ব্যাংক স্থিতি ৩৭ লাখ ৮৫ হাজার ৮১৫ টাকাসহ মোট ১ কোটি ৫২ লাখ ৮০ হাজার ৩৫৯ টাকা। অধ্যক্ষ আবু ইউসুফ ও প্রধান হিসাবরক্ষক শহিদুল ইসলাম অন্যান্য আসামিদের সঙ্গে যোগসাজশে অবশিষ্ট নগদ ২ কোটি ৫৭ লাখ ৯৮ হাজার ২৫৩ টাকা হিসাবে কম দেখিয়ে আত্মসাৎ করেছেন।

অনুসন্ধানে আরো জানা যায়, স্কুলের উদ্বৃত্ত তহবিল ও দৈনিক কালেকশন অনুযায়ী কখনও কোনো ধরনের ঋণের প্রয়োজন ছিল না। তারপরও অধ্যক্ষ আবু ইউসুফ আত্মসাতের উদ্দেশে জমা-খরচ বইয়ে ১ কোটি ২৮ লাখ ৩৫ হাজার টাকার কাল্পনিক ঋণ দেখিয়েছেন। তার মধ্যে ৩৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা ব্যাংকে জমা দেখান। কাল্পনিক ঋণ হিসাবের বিপরীতে ভুয়া ঋণ পরিশোধের নামে ৯২ লাখ ৮৫ হাজার টাকার মধ্যে ১৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা নগদ উদ্বৃত্ত থেকে পরিশোধ দেখান। অধ্যক্ষ আবু ইউসুফ ও প্রধান হিসাবরক্ষক শহিদুল ইসলাম অন্য আসামিদের সঙ্গে যোগসাজশে অবশিষ্ট ৭৩ লাখ ৩৫ হাজার টাকা ভয়া ঋণ পরিশোধের (প্রকৃতপক্ষে পরিশোধ করা হয়নি) নামে ব্যাংক থেকে উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন।

তদন্তকালে দেখা যায়, স্কুলের নামে প্যাডে তৈরি ডেবিট ভাউচারে ২০১৫ সালের ১৭ মে তারিখে কমিটি গঠন বাবদ তিনটি আলাদা ভাউচারে ২ লাখ ৩০ হাজার, একই বছরের ২৫ ফেব্রুয়ারি তারিখে একটি ভাউচারে অভ্যন্তরীণ পরীক্ষা বিল ও সম্মানি বাবদ ২২ লাখ ৭২ হাজার ৩০৩ টাকা; ৯ জুন তারিখে দুটি ভাউচারে মিডিয়া খরচ বাবদ ৮০ হাজার টাকা; ২০১৬ সালের ১১ জুলাই একটি ভাউচারে মামলার নিষ্পত্তি বাবদ ৫০ হাজার ও ২০১৩ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর একটি ভাউচারে ঋণ পরিশোধ বাবদ ১০ লাখ টাকাসহ মোট ৪০ লাখ ৮২ হাজার ৩০৩ টাকা সেবাদানকারী বা প্রাপকের তৈরি বিল ছাড়াই স্কুলের নিজস্ব ডেবিট ভাউচারের মাধ্যমে পরিশোধ (প্রকৃতপক্ষে পরিশোধ করা হয়নি) দেখিয়ে আত্মসাৎ করা হয়েছে। অধ্যক্ষ আবু ইউসুফ ও প্রধান হিসাবরক্ষক শহিদুল ইসলাম অন্যান্য আসামিদের সঙ্গে যোগসাজশে ভাউচার ছাড়াই খরচ দেখিয়ে ৯৯ লাখ ৬৭ হাজার ১২ টাকা আত্মসাৎ করেন।

দুদক সূত্র বলছে, আবু ইউসুফ তার দায়িত্ব পালনকালে ২০১২ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ২০১৭ সালের ২০ মার্চ সময়ে ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে আদায় করা টাকা থেকে দৈনিক জমা-খরচ বইয়ে কম দেখিয়ে ৩৫ লাখ ৮৭ হাজার ১৫৭ টাকা, জমা-খরচ হিসাব গরমিল দেখিয়ে ২ কোটি ৫৭ লাখ ৯৮ হাজার ২৫৩ টাকা, প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের ভবিষ্যৎ তহবিলে (পিএফ) জমা দেয়ার জন্য ব্যাংক থেকে উত্তোলন করেও পিএফ ফান্ডের অ্যাকাউন্টে জমা না দিয়ে ১১ লাখ ৮৯ হাজার ৩০৫ টাকা, কাল্পনিক ও ভুয়া ঋণ পরিশোধের নামে ৭৩ লাখ ৩৫ হাজার, স্কুলের নামের প্যাডে তৈরি করা ডেবিট ভাউচারের মাধ্যমে উত্তোলন করা ৪০ লাখ ৯২ হাজার ৮০৩ টাকা, কোনো ধরনের ভাউচার ছাড়াই ভুয়া খরচ দেখিয়ে ৯৯ লাখ ৬৭ হাজার ১২ টাকাসহ মোট ৫ কোটি ১৯ লাখ ৬৯ হাজার ৫৩০ টাকা অফিস সহকারী/হিসাবরক্ষক শহিদুল ইসলাম ও অন্য আসামিদের সঙ্গে যোগসাজশে আত্মসাৎ করেছেন।

দুদক সূত্র আরো বলছে, অফিস সহকারী শহিদুল ইসলাম প্রতিষ্ঠানের জন্য সংগ্রহ করা সম্পদ ও তহবিলের যথাযথ লিপিবদ্ধ এবং আয়-ব্যয়ের যথাযথ হিসাব সংরক্ষণের দায়িত্বে ছিলেন। এছাড়াও ২০১৩ সালের ২৫ মে থেকে ২ বছরের জন্য ম্যানেজিং কমিটির শিক্ষক প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন আব্দুর রউফ মোল্লা। তিনি ২০১৪ সালের ১৮ মার্চ গঠিত অর্থ কমিটিতে এবং ১৮ ডিসেম্বর গঠিত অভ্যন্তরীণ নিরীক্ষা কমিটিতে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি প্রতিষ্ঠানের জন্য সংগ্রহ করা সম্পদ ও তহবিলের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিতকরণ ও নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বে ছিলেন। তার ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন না করে ২০১৩ সালের ৩১ মে থেকে ২০১৫ সালের ১৯ এপ্রিল পর্যন্ত সময়ে ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে আদায় করা টাকা থেকে দৈনিক জমা-খরচ বইয়ে কম দেখিয়ে ১১ লাখ ৪ হাজার ২৪৫ টাকা, প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের ভবিষ্যৎ তহবিলে (পিএফ) জমা দেয়ার জন্য ব্যাংক থেকে উত্তোলন করেও পিএফ ফান্ডের অ্যাকাউন্টে জমা না দিয়ে ১১ লাখ ৮৯ হাজার ৩০৫ টাকা, স্কুলের নামের প্যাডে তৈরি করা ডেভিট ভাউচারের মাধ্যমে উত্তোলন করা ৩৯ লাখ ৫২ হাজার ৩০৩ টাকা, কোনো ধরনের ভাউচার ছাড়াই ভুয়া খরচ দেখিয়ে ২০১২ সালের ১৫ জুলাই থেকে ২০১৫ সালের ২৩ এপ্রিল পর্যন্ত সময়ে ৮৮ লাখ ৬৭ হাজার ২ টাকাসহ মোট ১ কোটি ৫১ লাখ ১২ হাজার ৮৫৫ টাকা সাবেক অধ্যক্ষ আবু ইউসুফ, অফিস সহকারী বা হিসাবরক্ষক শহিদুল ইসলাম ও অন্য আসামিদের সঙ্গে যোগসাজশে আত্মসাৎ করেছেন।

এসব অভিযোগ ও টাকা আত্মসাত, দুদকের মামলা ও চার্জশীপসজ সার্বিক বিষয়ে জানতে গভর্নিং বডির সাবেক সভাপতি মশিউর রহমান মোল্লা সজলকে তার ব্যক্তি মোবাইলে একাধিকবার কল দিলেও তিনি রিসিভ করেননি। যারফলে তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।