রাসেল হোসেন, মিরপুর প্রতিনিধি: সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছেন ছোটপর্দার অভিনেত্রী আশা চৌধুরী। সোমবার (৪ জানুয়ারি) মধ্যরাতে মিরপুরের দারুস সালাম এলাকায় একটি ট্রাকের ধাক্কায় তিনি মোটরবাইক থেকে রাস্তায় ছিটকে পড়েন। তাঁর মাথা থেঁতলে যায়। শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন (ইন্নানিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

জানা গেছে, গতকাল রাতে বোর্ড বাজার এলাকা থেকে ফিরছিলেন এই অভিনেত্রী। সেখানে তাঁদের নিজেদের বাসার কাজ চলছে। সেটা দেখভাল করে ফেরার কথা ছিল তাঁদের রূপনগর আবাসিক এলাকার বাসায়। সেই ফেরা আর হলো না আশার। আশার বাবা আবুল কালাম মেয়ের মৃত্যুতে ভেঙে পড়েছেন। ফোনে কথা বলতে পারলেন না তিনি। শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের মর্গে রয়েছে লাশ। সেখান থেকে কথা বললেন নির্মাতা রোমান রুনী।

সর্বশেষ ২ জানুয়ারি এই নির্মাতার নাটক ‘দ্য রিভেঞ্জ’-এ অভিনয় করেছেন আশা। রোমান বলেন, ‘গতকাল রাত দেড়টার দিকে টেকনিক্যাল এলাকার সড়কে দুর্ঘটনা ঘটে। পেছন থেকে একটি ট্রাকের ধাক্কায় প্রায় ২০ ফুট দূরে গিয়ে পড়ে আশা। সঙ্গে সঙ্গে দারুস সালাম থানার পুলিশ এসে তাকে শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নেয়। সেখানকার দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক তখনই জানান ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়েছে।’

নাটকটির নির্মাতা রোমান রুনী জানান, আশার একটা স্বপ্ন ছিল প্রধান চরিত্রে অভিনয় করার। তাঁর অভিনয় দক্ষতার কারণে সেই সুযোগ তিনি দিয়েছিলেন। তিনি যখন তাঁকে গল্পটি দিয়ে জানান, তিনিই প্রধান নায়িকা। তখন চরিত্রটি ঠিকভাবে ফুটিয়ে তোলার জন্য তিনি টানা এক সপ্তাহ ধরে পরিশ্রম করেছেন। নিজে থেকে সালাহউদ্দিল লাভলু এবং আনিসুর রহমান মিলনের সঙ্গে গল্প নিয়ে বসেছিলেন। রুনী বলেন, ‘নাটকের প্রতিটা দৃশ্য শেষে আশা সবাইকে জিজ্ঞাসা করেছে কেমন হয়েছে, ভালো না হলে সে আবার দৃশ্যটি করতে চাইত। কাজের প্রতি সে খুব সিরিয়াস ছিল। তার স্বপ্ন ছিল চলচ্চিত্র নিয়ে। সে পথে এগোনোর মাঝেই সে মারা গেল।

আশা চৌধুরীরা চার বোন। সে ছিল সবার বড়। ঢাকার বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলোজিতে (বিইউবিটি) লতে ৭ সেমিস্টারে পড়াশোনা করতেন। তাঁর গ্রামের বাড়ি পাবনা।

মঙ্গলবার দুপুরে এই অভিনেত্রীর জন্য শোক প্রকাশ করে অভিনেতা আনিসুর রহমান মিলন ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন। সেখানে তিনি লিখেছেন, ‘আমার ২০২১ সালের শুরুর কাজটি ছিল ১ ও ২ তারিখ, যেখানে আশা চৌধুরী নামে এই মেয়েটি অভিনয় করেছে। তার মানে দুদিন আগেই কাজ করেছি একসাথে। আজ সকালে এক সড়ক দুর্ঘটনায় আশা চিরতরে আমাদের ছেড়ে চলে যান (ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন)। আশার আত্মার মাগফেরাত কামনা করি।’

আশা চৌধুরী বাংলাদেশ টেলিভিশনের তালিকাভুক্ত শিশুশিল্পী ছিলেন। একক নাটকে নিয়মিত অভিনয় করতেন তিনি। টেলিফিল্ম ও ধারাবাহিক নাটকেও তাকে অভিনয় করতে দেখা গেছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে