টাচ নিউজ ডেস্কঃ ফরিদপুরে বন্ধুর স্ত্রীর সাথে পরকীয়ার জেরে রানা (৩৬) নামের এক ব্যক্তির মুখে অ্যাসিড জাতীয় রাসায়নিক দিয়ে ঝলসে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে তার বন্ধু রিপনের (৩৬) বিরুদ্ধে। রানা মধ্য আলীপুর এলাকার আব্দুর রবের ছেলে। গুরুতর আহত অবস্থায় রানাকে ফরিদপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, ফাইলপত্র নিয়ে হাসপাতাল থেকে নিখোঁজ হয়েছে রানা। রানা ও রিপন দুজনেই মাদকসহ একাধিক মামলার আসামি।

শনিবার (২ এপ্রিল) রাত সাড়ে ১০টার দিকে শহরের গুহলক্ষীপুর মহল্লা এলাকার দারিকানাথ হিন্দু ছাত্রবাস এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এলাকায় ‘টোকাই’ রানা হিসেবে পরিচিত অ্যাসিডে দগ্ধ ওই ব্যক্তি। অপরদিকে গুহলক্ষীপুর মহল্লার বাসিন্দা রিপন এলাকায় ‘টাকি’ রিপন নামে পরিচিত।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, রানা ও রিপন পরস্পর বন্ধু। তার দু’জনে মাদকসহ বিভিন্ন অসামাজিক কাজের সাথে জড়িত। সম্প্রতি মাদক মামলায় দু’জনই কারাগারে ছিল। তবে রানা জামিনে আগে বের হয়ে আসার সুবাধে রিপনের স্ত্রীর সাথে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে। পরবর্তিতে রিপন কারাগার থেকে বের হয়ে এ বিষয়টি জানতে পারে।

শনিবার রাতে স্ত্রীর সাথে পরকীয়ার জের ধরে বন্ধু রিপন মোবাইলফোনে গুহলক্ষীপুর এলাকায় রানাকে ডেকে আনেন। পরে তাদের মধ্যে প্রথমে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে রানার মুখে অ্যাসিড ছুড়ে মারে রিপন। এতে রানার মুখ ঝলসে যায় সাথে সাথে। আহত রানার চিৎকারে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।

এদিকে, মেডিকেল হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক রতন সাহা জানান, রোববার (৩ এপ্রিল) দুপুর ১টার দিকে রানা তার চিকিৎসার ফাইলপত্রসহ হাসপাতাল থেকে পালিয়ে গেছে। তাকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

ফরিদপুর কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এম এ জলিল বলেন, বন্ধুর স্ত্রীর সাথে পরকীয়ার জের ধরে মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে রানা নামে এক ব্যক্তির মুখমণ্ডলে ক্যামিক্যাল নিক্ষেপ করে রিপন। এরা দুজনই মাদকসহ একাধিক মামলার আসামি। এই ব্যাপারে এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (বিকেল ৪টা) ফরিদপুর কোতয়ালী থানায় কোনো লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়নি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে