টাচ নিউজ ডেস্কঃ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিভাগের চার শিক্ষার্থী কিউআর কোড, ডিজিটাল ওয়ালেট, মোবাইল ব্যাংকিং এবং ট্র্যাকিং সিস্টেম ব্যবহার করে মোবাইল এপ্লিকেশন ভিত্তিক একটি আধুনিক গণপরিবহণ ব্যবস্থা প্রকল্পের উদ্ভাবন করেছেন। এতে যাত্রীরা কিউআর কোড স্কান করেই দিতে পারবেন ভাড়া।

ইতোমধ্যে প্রস্তাবিত পদ্ধতিটি বাস্তবায়নের জন্য উদ্ভাবন ডিজাইন ও উদ্যোক্তা একাডেমি (Innovation Design and Entrepreneurship Academy- IDEA) থেকে ১০ লাখ টাকার ফান্ড পেয়েছে প্রকল্পটি।

GO BANGLADESH নামের এপ্লিকেশনের সদস্যরা হচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২তম ব্যাচের শিক্ষার্থী মো. মেহেদী হাসান সৌরভ, ১৪তম ব্যাচের শিক্ষার্থী রেজাউল করিম এবং ১৫তম ব্যাচের শিক্ষার্থী জাহাঙ্গীর হোসাইন ও নিশাত মাহমুদ।

এ অ্যাপ উদ্ভাবনে চার শিক্ষার্থীর টিমকে সার্বিক সহযোগিতা করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সিএসই বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. জুলফিকার মাহমুদ, সাবেক শিক্ষক এবং a2i এর সাবেক ন্যাশনাল কনসালটেন্ট জাহিদুর রহমান।

জুলফিকার মাহমুদ এবিষয়ে বলেন, অনিবন্ধিত বাস ও ড্রাইভার এ সিস্টেম ব্যবহার করতে পারবে না। বাসের প্রতিটি সিটের পেছনে একটি করে কিউআর কোড লাগানো থাকবে। যাত্রী যে সিটে বসে আছে, তার সামনের সিটের পেছনে সে সিটের কোডটি থাকবে। যাত্রীরা তার সামনের কোডটি স্ক্যান করার মাধ্যমে শুধু গন্তব্য সিলেক্ট করে ভাড়া দিয়ে দিতে পারবেন। ডিজিটাল ওয়ালেট থেকে টাকা কেটে নিবে। তাছাড়া ভবিষ্যৎ ভ্রমণের জন্য অগ্রিম টিকিটও বুক করে রাখা যাবে। জার্নির বিপরীতে কোনো মন্তব্য বা অভিযোগ থাকলে যাত্রীরা তা একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত দিতে পারবেন ও সেবার মান নির্ধারণ করতে পারবেন। আর এসব কার্যক্রম সরাসরি পরিবহন মালিক দেখতে পারবেন।

তিনি আরও বলেন, কোনো যাত্রী ডিজিটালি ভাড়া দিতে না পারলে ক্যাশ টাকার মাধ্যমেও ভাড়া নিতে পারবেন। ডিজিটালি দেওয়া ভাড়া সরাসরি মালিকের মার্চেন্ট অ্যাকাউন্টে যোগ হবে। এছাড়া টাকার মাধ্যমে নেওয়া ভাড়া ড্রাইভার মালিককে দেবেন। বাসমালিক বাসের অবস্থান, ড্রাইভারের বিস্তারিত, যাত্রীর তথ্য এবং যাত্রীর অভিযোগগুলোও দেখতে পারবেন।

উদ্ভাবিত প্রজেক্টটি মুজিবশতবর্ষ উপলক্ষে আয়োজিত মুজিব ১০০ আইডিয়া প্রতিযোগিতা ২০২১ সেরা ৩০ এর মধ্যে স্থান করে নিয়েছে। এ ছাড়া, আইডিয়াটি সিটি ইউনিভার্সিটি আয়োজিত CSE Festival ২০২১ প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে। এরইমধ্যে হিমাচল পরিবহন বাস সিস্টেমটি ব্যবহারের আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

সোমবার (৭ ফেব্রুয়ারি) জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কনফারেন্স রুমে প্রকল্পটি বাস্তবায়নে শিক্ষার্থীদের কাজের অগ্রগতি সম্পর্কে একটি প্রেজেন্টেশনের আয়োজন করা হয়। এসময় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. ইমদাদুল হক, ট্রেজারার অধ্যাপক ড. কামালউদ্দীন আহমদ, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভাগীয় চেয়ারম্যানসহ অন্য শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন।

মঙ্গলবার (৮ ফেব্রুয়ারি) বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রকল্যাণ দপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক ড. আইনুল ইসলাম গবেষণা দলটিকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। এসময় প্রকল্পটির একটি প্রেজেন্টেশন গণমাধ্যমের সামনে তুলে ধরা হয়।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে