ইকবাল আহমেদ লিটন: যে দুটি মানুষ ইউরোপে প্রত্যেকটা মুহুর্তে অনুভব করেন রাষ্ট্রনায়ক দেশরত্ন শেখ হাসিনার সোনার বাংলা গড়ার। প্রিয় নেত্রীর স্বপ্ন বাস্তবায়নে সর্বস্ব দিয়েই তাদের চেষ্টার কোনো ত্রুটি নেই। নিজস্ব সামর্থের মধ্যে প্রবাসে ব্যাস্ত সময়ের মধ্যে থেকেও পরিশ্রম ও মেধা খাঁটিয়ে, দলীয় কর্মকাণ্ডে নেতা- কর্মীদের প্রয়োজনে নিরলস সাধনায় ও চেষ্টায় সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিত করার নিমিত্তে সর্বদা প্রস্তুত। তাহারা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অহংকার, সারা বাংলার পাঠক ও কর্মী সমাজের গর্ব, লাখ লাখ নেতা কর্মীর প্রাণের স্পন্দন, সর্বপরি রাজনৈতিক অভিভাবক।

আন্দোলন-সংগ্রামের মাধ্যমে গড়ে ওঠা নেতা যারা রাজপথে কারো সঙ্গে প্রতারণা করেন নাই বরং তাদের আলোই আলোকিত হচ্ছে বাংলার মানুষ। যাদের সাহসিক, সৎ ও যোগ্য নেতৃত্বে আজ সারা ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের অন্তর্গত প্রতিটি দেশে সফলভাবে সম্মেলন করে যাচ্ছে এবং বঙ্গবন্ধু কন্যার হাতকে শক্তিশালি করে ত্যাগি, পরিশ্রমী ও যোগ্যদের মূল্যায়নে প্রত্যাক্ষ ভূমিকায় আলোকিত করে চলেছেন অবিরত। তারা সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে যোগ্য নেতৃত্ব সৃষ্টিতে অবিরাম ধারায় কাজ করে চলেছেন ইউরোপের রাজপথে। বিগতদিন থেকে ওনারা সংগঠন বেগবান করে যাচ্ছেন এবং যতদিন বেঁচে থাকবেন ততদিন বঙ্গবন্ধুর আদর্শে নিজেদের পরিচালিত করবেন। ইউরোপের প্রতিটা দেশের নেতাকর্মী ও সর্বস্তরের জনসাধারণ যাদের নিয়ে স্বপ্ন দেখে তাহারা সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সৎ, পরিশ্রমী, মা, মাটি ও মানুষের নেতা আমাদের সবার প্রিয় যথাক্রমে সভাপতি এম নজরুল ইসলাম ও সাধারন সম্পাদক মুজিবুর রহমান।

আর যারা এই সৎ ও সুন্দর মানুষদের নিয়ে আজেবাজে মন্তব্য ও গুজব সৃষ্টি করছেন তাদের অস্তিত্ব আগেও ছিল না, এখনও নাই এবং আগামীতেও থাকবেনা ইনশাআল্লাহ কারণ স্বার্থের জন্য পরনিন্দা করা লোক মানেই জামাতি ও বামাতি। সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগ এগিয়ে চলেছে দুর্বার গতিতে, রুখে দিবে সাধ্য কার! সকলে ঐক্যবদ্ধভাবে দেশ ও জাতিকে এগিয়ে নিতে প্রিয় নেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা এবং সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সাথেই থাকুন।

লেখক: সাবেক ছাত্রলীগ নেতা, সদস্য সচিব- আয়ারল্যান্ড আওয়ামী লীগ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে