টাচ নিউজ ডেস্ক: ঝিনাইদহের বাজারে কমেছে সব ধরনের সবজির দাম। পাইকারি পর্যায়ে প্রতি কেজি সবজি বিক্রি হচ্ছে ১০-১৫ টাকা কম দামে। এতে ভোক্তারা খুশি হলেও লোকসানের মুখে কৃষকরা। তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন, মৌসুমি সবজির সরবরাহ বেড়ে যাওয়ায় কমেছে দাম।

থরে থরে সাজানো শীতকালীন সবজির পসরা বসেছে ঝিনাইদহের বাজারগুলোতে। এসব সবজির দামও নেমে এসেছে বেশ সহনীয় পর্যায়েই। এক সপ্তাহের হিসেবে জেলার পাইকারি বাজারগুলো সব ধরনের সবজির দাম প্রতি কেজিতে কমেছে ১০-১৫ টাকা পর্যন্ত।

শহরের নতুন হাটখোলা পাইকারি আড়তে প্রতি কেজি বেগুন ২৫-৩০ টাকা, ফুলকপি ৮ থেকে ১০, শিম ২০ থেকে ২৫, মূলা ৮ থেকে ১০, মরিচ ২০-২৫, পটোল ২০ থেকে ২২ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

সবজির দাম কমার বিষয়ে কৃষকরা জানিয়েছেন, বর্তমানে সবজির যে বাজারদর তাতে লোকসান না হলেও খুব একটা লাভবান হচ্ছেন না তারা। দাম এভাবে কমতে থাকলে লোকসানের পাল্লা ভারী হওয়ার শঙ্কায়ও তারা। তবে তাজা শাকসবজির দাম কম থাকায় স্বস্তিতে ক্রেতারা। তারা বলেছেন, সবজি থেকে শুরু করে অন্য সব নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেশি ছিল, তবে এ সপ্তাহে সবজির দাম কিছুটা কমেছে।

বাজারে আসা কৃষকরা বলেছেন, সবজির দাম অনেক কম। আরও কমলে হাটবাজারে তোলাই কষ্ট হয়ে উঠবে। আগে ৩০ থেকে ৩৫ টাকা দিয়ে পাতাকপি বিক্রি করা হতো, তবে এ সপ্তাহে পাতাকপির দাম অনেক কম।

এ দিকে বাজারে সবজির সরবরাহ বেশি হওয়ায় কমেছে দাম। আরও কয়েক সপ্তাহ দাম কমতির দিকে থাকবে বলেও মনে করছেন তারা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে