টাচ নিউজ ডেস্ক: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শহীদ শেখ রাসেলের ৫৮তম শুভ জন্মদিবস উপলক্ষ্যে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ এবং দুস্থদের মাঝে খাবার ও বস্ত্র বিতরণ করেছে, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ও আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ।

সোমবার (১৮ অক্টোবর) বিকালে টিএসসি সংলগ্ন ডাস চত্ত্বরে সুবিধা বঞ্চিত খাদ্র বস্ত্র বিতরণের পাশাপাশি শিশুদের মৌলিক শিক্ষার উদ্যেশ্যে শেখ রাসেল পাঠশালার উদ্বোধন করা হয়।

অনুষ্ঠানে বক্তব্যকালে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি জননেতা নির্মল রঞ্জন গুহ। তিনি বলেন. শেখ রাসেল বাঙালির মুক্তির সংগ্রাম ও স্বাধীনতার প্রতিকী শিশু। শেখ রাসেল বেঁচে থাকলে আমরা একজন দূরদর্শী আদর্শবান নেতা পেতাম। যাকে নিয়ে দেশ ও জাতি গর্ববোধ করতে পারতো। শেখ রাসেল বাঙালির অনন্ত বেদনার কাব্য। শেখ রাসেল হোক প্রতিটি শিশুর অনুপ্রেরণা। বাংলার প্রতিটি শিশুকে জানাতে হবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট্ট নিস্পাপ, শিশু সন্তান, শহীদ শেখ রাসেলকেও ঘাতক চক্র নৃশংসভাবে হত্যা করেছিল।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান বাবু বলেন, বাঙালির শৈশবের প্রতীক জাতির পিতার কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেল। ১৯৬৪ সালের ১৮ অক্টোবর ধানমন্ডি ৩২ নম্বর সড়কের ৬৭৭ নম্বর বাড়ীতে বড়বোন শেখ হাসিনা (প্রিয় হাসু) আপার শয়ন কক্ষে মহিয়ষী নারী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের কোলে জুড়ে পৃথিবীতে আসেন শেখ রাসেল। আজ তাঁর ৫৮ তম জন্মদিনে গভীর ভালোবাসা ও বিনম্র শ্রদ্ধায় স্মরণ করছি এবং তাঁর আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঘাতকের নির্মম বুলেট কেড়ে নিয়েছে জাতির পিতার অত্যন্ত আদরের সন্তান বাঙালির প্রিয় শেখ রাসেলকে। তিনি তো কোন রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন না! তিনি ছিলেন নিস্পাপ, শেখ রাসেলকে হত্যার মধ্য দিয়ে খুনিরা পৃথিবীর ইতিহাসে কলংকের কালিমা লেপন করেছে! পৃথিবীর আর একটি শিশুও যেন এরকম নৃসংস বর্বর হত্যাযজ্ঞের শিকার না হয় এমনটাই প্রত্যাশা করছি। অনন্তকাল বাঙালির প্রতিটি শিশুর অন্তরে মিশে থাকবে শেখ রাসেল। আগামীর প্রতিটি শিশুকে শেখ রাসেল বিষয়ে জানাতে শেখ রাসেলের পাঠাগার নিবিড়ভাবে ভূমিকা রাখবে মর্মে আশা প্রকাশ করেন তিনি। আগামী প্রজন্মকে সাম্প্রদায়িকতা থেকে মুক্ত রাখতে এবং অসাম্প্রদায়িক চেতনায় গড়ে তুলতে শেখ রাসেলের পাঠাগার সারাদেশে ছড়িয়ে দিতে হবে।

এসময় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের দিক নির্দেশনামূলক বক্তব্য দেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়।

আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ও আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে