কক্সবাজার: শনিবারের বৈঠকে অংশ নেওয়া সেই ৩৫ জন রোহিঙ্গা প্রতিনিধির সঙ্গে রোববারও (২৮ জুলাই) আবার বৈঠক করেছে মিয়ানমারের প্রতিনিধি দল।

দেশটির পররাষ্ট্র সচিব মিন্ট থোয়ের নেতৃত্বে সকাল ১০টায় উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্প-৪ এক্সটেনশনে এ বৈঠক শুরু হয়। প্রায় দেড়ঘণ্টাব্যাপী চলে েএ বৈঠক। এ বিষয়ে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ব্রিফ করা হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

শনিবার (২৭ জুলাই) একই স্থানে প্রায় তিনঘণ্টা বৈঠক করে মিয়ানমারের প্রতিনিধি দর। এ সময় রোহিঙ্গাদের জন্য কী কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তা রোহিঙ্গা নেতাদের বোঝানোর চেষ্টা করেন প্রতিনিধি দলের সদস্যরা।

বৈঠকে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দশটি রাষ্ট্র নিয়ে গঠিত রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক জোট আসিয়ান-এর পাঁচজন সদস্যও উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু ওইদিন ফলপ্রসু কোনো আলোচনা ছাড়াই বৈঠক শেষ হয়।

বৈঠকে মিয়ানমার প্রতিনিধি দলের কাছে রোহিঙ্গাদের পক্ষে বিভিন্ন দাবি- তুলে ধরেন আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটসের চেয়ারম্যান মো. মুহিব উল্লাহ।

তিনি বলেন, গতকালের (শনিবার) আলোচনা ফলপ্রসু হয়নি। আজ (রোববার) আবার তারা বৈঠকের আহ্বান জানিয়েছেন। আমরা আমাদের দাবিগুলো তুলে ধরবো।

মুহিব বলেন, গতকাল (শনিবার) তারা সেই পুরনো প্রস্তাবগুলোই আমাদের দিয়েছেন। মিয়ানমারে গিয়ে আগে এডিপি ক্যাম্পে থাকতে হবে। আমরা তাদের এসব প্রস্তাবে রাজি নই।

এর আগে শুক্রবার (২৬ জুলাই) রাতে মিয়ানমার প্রতিনিধি দল বাংলাদেশ পৌঁছে। শনিবার সকালে প্লেনে কক্সবাজার যান তারা। সেখান থেকে ইনানীর হোটেল রয়েল টিউলিপে যান মিয়ানমার প্রতিনিধি দলের সদস্যরা।

সেখানে কিছুক্ষণ অবস্থানের পর বেলা একটার দিকে উখিয়ায় পৌঁছে সেখানে বিকেল চারটা পর্যন্ত রোহিঙ্গাদের সঙ্গে বৈঠক করেন তারা।

উল্লেখ্য, মিয়ানমারের সৈন্যবাহিনী ও স্থানীয় মগদের চালানো নির্যাতন ও দমন নিপীড়নের কারণে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর থেকে বাংলাদেশে আসতে শুরু করে রাখাইন রাজ্যের রোহিঙ্গারা। নতুন-পুরাতন মিলিয়ে বর্তমানে সাড়ে ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা এখন কক্সবাজারে অবস্থান করছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে