মোস্তফা কামাল মিলন, লন্ডন: গত চৌঠা জুন শনিবার লন্ডনের একটি প্রশাসনিক এলাকা রেডব্রীজ বারার ব্রীজ নামক ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত কাউন্সিলর সাঈদা চৌধুরী স্থানীয় বাসিন্দাদের জন্যে একটি বিশেষ চা-চক্রের আয়োজন করেন।

বৃটেনের মহামান্য রাণী দ্বিতীয় এলিজাবেথের সিংহাসনে আরোহণের প্লাটিনাম জুবিলি অর্থাৎ সত্তুরতম বার্ষিকী উপলক্ষ্যে এই চা-চক্রের আয়োজন করা হয়। চিগুয়েল রোডে অবস্থিত হপস্কচ চিলড্রেনস ট্রাস্ট ও ব্রীজ ফ্লোরিংয়ের সামনে, এ দুটি সংস্থারই সমর্থনে দুপুর বারোটা হতে বিকেল তিনটে অব্দি এটি চলে। স্থানীয় পথচারীগন ও ব্রীজ ওয়ার্ডের অনেক বাসিন্দা অত্যন্ত স্বতঃস্ফূর্তভাবে পুলকিত চিত্তে এই মূহুর্তের ভাগীদার হওয়ার সুযোগ গ্রহন করেন।

অতিথিদের মধ্যে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় এমপি ও ছায়া স্বাস্থ্যমন্ত্রী ওয়েজ স্ট্রিটিং, রেডব্রীজ কাউন্সিলের লীডার জাস্ আতওয়াল, ডেপুটি লীডার কাম রাই, কাউন্সিলর মোহাম্মদ জাভেদ, কাউন্সিলর মার্টিন সাক্স, কাউন্সিলর জুলফিকার হোসেইন, কাউন্সিলর লিবো পাকোই এবং কাউন্সিলর সাঈদ শেকুল ইসলাম।

চায়ের সাথে সুন্দর করে ঘরে তৈরী সুসজ্জিত কেক দিয়ে বাসিন্দা ও অতিথিগনকে আপ্যায়ন করা হয়। সেই সঙ্গে সবাই ঐতিয্যবাহী চায়ের কাপে চুমুক দিতে দিতে সরাসরিভাবে গীত (গীতো) গান-বাজনা উপভোগ করেন। এ অনুষ্ঠাকে কমিউনিটির পরস্পরকে পরস্পরের সঙ্গে পরিচিত হওয়া ও কুশল বিনিময় করা, একে অপরকে সম্পৃক্ত করা ও যথাসম্ভব সবাইকে একত্রিত করা এবং জীবদ্দশায় প্লাটিনাম জুবিলির উদযাপনের মত বিরল ক্ষণের ভাগীদার হয়ে নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করার একটি সুশোভিত ও মনোহর তথা সুন্দরতম অংশ হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। অতি অল্প সময়ের মধ্যে এমন একটি সর্বজনবিদিত অথচ হৃদয়গ্রাহী সমাবেশ আয়োজনের মাধ্যমে বৃটেনের মহামান্য রাণী দ্বিতীয় এলিজাবেথের তাঁর রাজ্যকে বা দেশের প্রতিটি মানুষকে আগলে রাখার প্লাটিনাম জুবিলিতে স্থানীয় লোকজনকে বাস্তবে সম্পৃক্ত করার ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য কাউন্সিলর সাঈদা চৌধুরীকে উপস্থিত সবাই ধন্যবাদ জানান এবং এদের অনেকেই নিয়মিতভাবে বিভিন্ন সম্প্রদায় বা গোষ্ঠীর বিশেষ দিনগুলোকে ঘিরে এমনাভাবে সামাজিক অনুষ্ঠান আয়োজনের মাধ্যমে পারস্পরিক যোগাযোগ ও সৌহার্দকে সুসংহত করা এবং একে অপরের জীবনযাত্রা ও সাংস্কৃতিক ঐতিয্য আর এ সবের ইতিবাচক দিকগুলোগুলোকে ভাগাভাগী করার মাধ্যমে সমাজকে বলিষ্ঠতার শিখরে নিয়ে যাওয়ার গুরুত্বকে তুলে ধরেন। কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ার পর সাঈদা চৌধুরী জনগন ও স্থানীয় নেতানেত্রীকে একই ছাতের নীচে নিয়ে আসার এবং সমবেত বা একত্রিত করার যে কোনো সুযোগকে কাজে লাগানোর তার সহজাত প্রবৃত্তি এবং দেওয়া অঙ্গীকার ও প্রতিশ্রুতির প্রমাণ রাখলেন। ব্রীজ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সাঈদা চৌধুরী প্রচণ্ড তৃপ্তির অনুভূতি প্রকাশ শেষে, সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করে আর সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে আয়োজনটির পরিসমাপ্তি ঘটান।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে