টাচ নিউজ ডেস্ক: রাজধানীতে সিটিং সার্ভিস বন্ধ থাকবে বলে ঘোষণা দিয়েছে ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতি। গত বুধবার সমিতি সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেয়। যদিও আজ রোববার সিটিং সার্ভিস বন্ধ হয়নি।

২০১৭ সালের এপ্রিলে বেসরকারি সড়ক পরিবহন সংগঠনের পক্ষ থেকে রাজধানী ঢাকায় সিটিং সার্ভিস বাস বন্ধের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। তাতে সাড়া দিয়ে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) অভিযানও চালিয়েছিল। ওই অভিযানের পর কার্যত ধর্মঘটের পরিস্থিতি তৈরি হলে আবার চলতে শুরু করে সিটিং সার্ভিস।

বিআরটিএ ওইসময় সিটিং সার্ভিস বিষয়ক একটি কমিটি করেছিল। কমিটি ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে সরকারের কাছে প্রতিবেদন দাখিল করেছিল। তাতে ২৬টি সুপারিশ ছিল। এসব সুপারিশের মধ্যে ছিল- রাজধানীর বিভিন্ন রুটে সীমিত আকারে সিটিং সার্ভিস বাস রাখতে হবে, প্রারম্ভিক ও শেষ স্টপেজের মধ্যে পুরো দূরত্বের ভাড়া আদায় করা যাবে না, এজন্য আলাদা ভাড়া নির্ধারণ করা হবে।

ওই কমিটির সদস্য বিশিষ্ট সাংবাদিক অজয় দাশগুপ্ত বলেন, আমরা যে সুপারিশগুলো তৈরি করেছিলাম তা সরকারের সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় এবং বিআরটিএ-এর কাছে দিয়েছি। কোনো সুপরিশ বাস্তবায়ন হয়নি। এ অবস্থায় আবার সিটিং সার্ভিস বন্ধ করার জন্য ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। তাতে কোনো কার্যকর ফল হবে কি না সন্দেহ আছে। কারণ পুরো ব্যবস্থাকেই নতুন করে সাজাতে হবে, সংস্কার করতে হবে।

ওই কমিটি তখন সুপারিশ করেছিল- একটি কোম্পানির সব বাস সিটিং সার্ভিসের আওতায় পরিচালনা না করে কিছু বাস সিটিংয়ের আওতায় পরিচালনা করা যায়। এছাড়া কোনো বাস কোম্পানির বাকি বাসগুলো নন-সিটিং হিসেবে পরিচালনা করতে হবে। এ সংক্রান্ত প্রতিবেদনে কমিটি পর্যবেক্ষণে বলেছিল- সিটিং সার্ভিসের মাধ্যমে দীর্ঘদিন চলাচল করে যাত্রীরা অভ্যস্ত। মালিকরা সিটিং সার্ভিস পরিচালনায় স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করায় সিটিং সার্ভিস এখন সময়ের চাহিদা। কিন্তু কোন কোম্পানির কতগুলো গাড়ি সিটিং, কতগুলো নন-সিটিং হিসেবে চলাচল করবে তা ঠিক করতে পারে আঞ্চলিক পরিবহন কমিটি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে