টাচ নিউজ ডেস্ক: সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলার দ্বিতীয় দফা সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছে। এ সাক্ষ্যগ্রহণ  চলবে আগামী ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

রবিবার (৫ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টা ১৫ মিনিটের দিকে কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইলের আদালতে সাক্ষীদের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য সকাল থেকে আদালত প্রাঙ্গণে পুলিশের কড়া নিরাপত্তা জোরদার করা হয়। সকালে সাড়ে ৯টারদিকে সাবেক বরখাস্ত ওসি প্রদীপসহ আসামিদের আদালতে হাজির করা হয়।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম বলেন, “সাক্ষ্য প্রদানের জন্য ৫জন সাক্ষীদের আদালতে রাখা হয়েছে। চেষ্টা করা হবে পর্যায়ক্রমে তাদের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ করতে। চলবে আগামী ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।”

আগামী ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে এ সাক্ষ্যগ্রহণ। এর আগে ২৩ থেকে ২৫ আগস্ট টানা তিনদিন মামলার ১নং সাক্ষী ও বাদি শারমিন সাহরিয়া ফেরদৌস ও ২নং সাক্ষী সাহেদুল ইসলাম সিফাতের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ করেন আদালত। আজ আদালতের নির্ধারিত তারিখে মামলার ৩নং সাক্ষী দিয়ে সাক্ষ্যগ্রহন শুরু হওয়ার কথা জানিয়েছেন রাষ্ট্র পক্ষের আইনজীবী ও কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম।

তিনি জানান, “সবকিছু ঠিক থাকলে চাঞ্চল্যকর সিনহা হত্যা মামলায় দ্বিতীয় দফা সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হবে। রবিবার সকাল ১০টার দিকে কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল এর আদালতে এ সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হবে। এর আগে একই আদালতে গত ২৩ থেকে ২৫ আগস্ট প্রথম দফায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছিল। টানা তিন দিন সাক্ষ্যগ্রহণের পর মামলার বাদী মেজর (অব.) সিনহার বড় বোন শারমিন শাহারিয়ার ফেরদৌস এবং ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ২নং সাক্ষী সাহেদুল ইসলাম সিফাতের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ করেন।

গত বছর ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে