টাচ নিউজ ডেস্কঃ উত্তর আমেরিকার দেশ মেক্সিকোর বার ও হোটেলে বন্দুক হামলায় শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত অন্তত ১১ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এতে আহত হয়েছেন আরও কিছু লোক। একটি হোটেল এবং দুটি পৃথক বারে চালানো ওই সন্ত্রাসী হামলায় নিহতদের মধ্যে বেশ কয়েকজন নারীও রয়েছেন।

গত সোমবার (২৩ মে) স্থানীয় সময় দিবাগত রাতে দেশটির মধ্যাঞ্চলীয় সিলায়া শহরে ঘটনাটি ঘটে। স্থানীয় কর্তৃপক্ষের বরাতে ব্রিটিশ মিডিয়া বিবিসি নিউজ এবং মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিবিএস নিউজ তথ্যটি জানিয়েছে।

যদিও ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি বলছে, হোটেল এবং দুটি পৃথক বারে চালানো ওই আক্রমণের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা ১০ জন।

মিডিয়াগুলো বলছে, গত সোমবার দিবাগত রাতে দেশটির কেন্দ্রীয় গুয়ানাজুয়াতো প্রদেশের সেলায়া শহরে দুটি পৃথক বার এবং একটি হোটেলে চালানো ওই ঘটনায় নিহত ১১ জনের মধ্যে আটজন নারী এবং তিনজন পুরুষ রয়েছেন। এছাড়া এই ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও বেশ কিছু লোক।

সেলায়া শহরের নিরাপত্তা সচিবালয় বিবৃতির মাধ্যমে জানায়, ভয়াবহ সেই বন্দুক হামলার খবর পেয়ে ভ্যালে হারমোসোর আশপাশে পৌঁছানোর পর কর্মকর্তারা মৃতদেহগুলো খুঁজে পান।

প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, নিহতদের গুলি চালিয়ে হত্যা করা হয়েছে। হত্যার পর হামলাকারীরা স্থাপনায় আগুন দেওয়ার জন্য পেট্রোল ঢেলে দেয়।

তারা জানিয়েছেন, মৃতদেহগুলো প্লাস্টিকের টেবিল ও চেয়ারের মধ্যে ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল। এছাড়া একজনের লাশ ফুটপাতের মধ্যেও পড়ে ছিল।

বিশ্লেষকদের মতে, মেক্সিকোর গুয়ানাজুয়াতো হচ্ছে একটি সমৃদ্ধ শিল্প অঞ্চল। এখানে একটি শোধনাগার এবং একটি গুরুত্বপূর্ণ জ্বালানি পাইপলাইন রয়েছে। যদিও সান্তা রোসা দে লিমা এবং জালিস্কো নিউ জেনারেশন কার্টেল নামক দুটি গ্রুপের মধ্যে বিরোধের কারণে বর্তমানে এটি দেশটির অন্যতম সহিংস প্রদেশে পরিণত হয়েছে।

উল্লেখ্য, অপরাধী এই দলগুলো মাদক ও চোরাই জ্বালানি পাচারের রুট নিয়ন্ত্রণের জন্য একে অপরের সঙ্গে লড়াই করছেন। অবশ্য সর্বশেষ এই আক্রমণের ঘটনায় কর্তৃপক্ষ এখনো কোনো অপরাধী গ্রুপকে সন্দেহ করা হয়েছে কি-না; তা নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে