টাচ নিউজ ডেস্কঃ ক্রেতাদের এখন ঈদের চাপের কারণে বেশি দামে কিনতে হচ্ছে গরু-মুরগির মাংস। সপ্তাহের ব্যবধানে ব্রয়লার মুরগির দাম কেজিতে বেড়েছে ১০ টাকা। গরুর মাংসে ২০ থেকে ৫০ টাকা। ৭০০ টাকার নিচে এখন গরুর মাংস পাওয়া যাচ্ছে না।

গতকাল রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, সবজি বিক্রি হচ্ছে আগের দামেই। এখনো বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে বেগুন। লম্বা বেগুন ৮০ আর গোল বেগুন ১২০ টাকা। শসা প্রতি কেজি ৬০, শিম ৫০, করলা ৮০, টমেটো, গাজর, মুলা, শালগম, পেঁপে ৪০; চিচিঙ্গা, পটোল, ঢেঁড়স, কচুর লতি, বরবটি, ধুন্দল ৬০; মটরশুঁটি ১২০ টাকা। মিষ্টিকুমড়া, চালকুমড়া প্রতি পিস ৪০, লাউ আকারভেদে ৫০-৬০ টাকা। এসব বাজারে কাঁচা মরিচের কেজি ১০০ টাকা। কাঁচকলার হালি ৪০, লেবুর হালি ২০ থেকে ৪০ টাকা। আলু আগের মতোই ২০ টাকা কেজি।

পিঁয়াজ আগের দামে বিক্রি হচ্ছে ২৫ থেকে ৩৫ টাকায়। চায়না রসুন ১০০ থেকে ১২০, দেশি রসুন ৫০; দেশি আদা ৮০, চায়না আদা ৮০ থেকে ১০০ টাকা। এদিকে ফের বেড়েছে ভোজ্য তেলের দাম। এখন প্রতি লিটার সয়াবিন তেল ১৮০ টাকা; যা গত সপ্তাহে ছিল ১৭০। ২ লিটারের বোতল ৩৬০ টাকা। প্রতি কেজি খোলা সাদা চিনি ৮০-৮৫, সাদা প্যাকেট চিনি ৮৫-৯০ টাকা। এসব বাজারে দেশি মসুর ডালের কেজি ১৩০ টাকা। এদিকে অপরিবর্তিত আছে ডিমের দাম। লাল ডিম প্রতি ডজন ১০০, হাঁসের ১৫০ থেকে ১৫৫, দেশি মুরগির ২০০ টাকা।
গরুর মাংস প্রতি কেজি ৭০০ টাকা; যা গত সপ্তাহে ছিল ৬৫০ থেকে ৬৮০। ব্রয়লার মুরগি ১৮০ টাকা কেজি; যা সাত দিন আগে ছিল ১৭০। বেড়েছে সোনালি মুরগির দামও। বর্তমানে সোনালি মুরগির কেজি ৩০০ থেকে ৩১০ টাকা। লেয়ার ২৪০ থেকে ২৫০ টাকা। মাছের বাজারে দেখা গেছে, রুইয়ের কেজি ৩০০ থেকে ৪৫০, এক কেজি ওজনের ইলিশ ১৩০০ থেকে ১৬০০, তেলাপিয়া, পাঙ্গাশ ১৬০ থেকে ১৭০, শিং ৩০০ থেকে ৪৬০, শোল ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে