টাচ নিউজ ডেস্কঃ হস্তচালিত বেকারির সব ধরনের পণ্যের দাম বেড়েছে। এতে বিপাকে পড়েছেন নিম্ন আয়ের মানুষ। গত বুধবার (১ জুন) থেকে হস্তচালিত (নন ব্র্যান্ড) বেকারিপণ্যের দাম ২০ শতাংশ বাড়ানোর ঘোষণা দেয় বাংলাদেশ রুটি, বিস্কুট ও কনফেকশনারি প্রস্তুতকারক সমিতি। কিন্তু দাম বেড়েছে ন্যূনতম ৫০ শতাংশ। কোনো কোনো পণ্যে এর চেয়ে বেশি। মালিকরা বলছেন, দ্রব্যমূল্য বাড়ায় দীর্ঘদিন তারা লোকসান দিচ্ছিলেন। ভাংতি টাকা দেওয়া-নেওয়াকেও দাম বেশি বাড়ানোর কারণ বলছে সমিতি। ব্যবসায়ীদের নীতি-নৈতিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ।

সরেজমিনে রাজধানীর বেশ কিছু এলাকা ঘুরে দেখা যায়, দোকানে এখন ১০ টাকা দামের বিভিন্ন ধরনের পাউরুটি কেকসহ এজাতীয় পণ্য বিক্রি হচ্ছে ১৫ টাকায়। ৫ টাকা দামের বনরুটির দাম করা করা হয়েছে ৮ টাকা। সব ধরনের খোলা বিস্কুটের ন্যূনতম দামও রাখা হচ্ছে ৫ টাকা, যা আগে ২ বা ৩ টাকায় পাওয়া যেত।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ রুটি, বিস্কুট ও কনফেকশনারি প্রস্তুতকারক সমিতির সাধারণ সম্পাদক রেজাউল হক রেজা জাগো নিউজকে বলেন, ‘সমিতি ২০ শতাংশ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত দিয়েছে। তবে অধিকাংশ বেকারি মালিক সে দাম মানেননি। একটা সমিতি তো সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না। এলাকাভেদে এ পরিস্থিতি হয়েছে।’

দাম বাড়ানোর ক্ষেত্রে খুচরা টাকা ব্যবহারে অনীহা ও বড় বড় কোম্পানিকে দায়ী করে তিনি বলেন, ‘২০ শতাংশ বাড়লে একটা রুটির দাম ১২ টাকাও করা যাবে না, আবার ১৫ টাকা না করলেও নয়। তাহলে দোকানিকে তিন টাকা ভাঙতি ফেরত দিতে হবে সেটা ঝামেলা। দোকানিরা ভাঙতি টাকা রাখতে চায় না। আবার বড় বড় কোম্পানি তাদের বেকারি রুটির দাম ১০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৫ টাকা করায় ছোট ছোট বেকারি উৎসাহিত হয়েছে।’

তবে রেজাউল হকের দাবি, কিছু কিছু এলাকার বেকারি পুরোপুরি সিদ্ধান্ত মেনে পণ্যের দাম ২০ শতাংশই বাড়িয়েছে। আর যারা বেশি বাড়িয়েছে তারা ওজন ও মান ভালো করেছে।

এর আগে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে দাম সমন্বয়ের জন্য মঙ্গলবার (৩১ মে) থেকে হুট করেই হস্তচালিত বেকারি মালিকরা অঘোষিত ধর্মঘটে যান। পরের দিনই ২০ শতাংশ দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত দেয় মালিক সমিতি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে