টাচ নিউজ ডেস্ক: গত সপ্তাহজুড়ে বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দামে ব্যাপক অস্থিরতা দেখা গেছে। হঠাৎ বড় দরপতন, এর পরই বড় উত্থান, এভাবেই বিশ্ববাজারে গত সপ্তাহের পাঁচদিন পার করেছে স্বর্ণ। অবশ্য ব্যাপক অস্থিরতার পরও সপ্তাহ শেষে কিছুটা বেড়েছে স্বর্ণের দাম।

তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস সোমবার বিশ্ববাজারে লেনদেন শুরু হওয়ার আগে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ছিল ১৭৬৩ ডলার। লেনদেন শুরু হতেই বড় দরপতনের মধ্যে পড়ে স্বর্ণ। একপর্যায়ে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ১৬৯৯ ডলারে নেমে যায়।

বড় এ দরপতনের পর অবশ্য আবার ঘুরে দাঁড়ায় স্বর্ণ। কয়েক ঘণ্টার মধ্যে দাম বেড়ে ১৭৫১ ডলারে উঠে আসে। এরপর আবার দাম কমে ১৭১৮ ডলারে নেমে যায়। সপ্তাহের প্রায় পুরো সময়জুড়ে এমন উত্থান-পতনের মধ্যে থাকে স্বর্ণের দাম।

সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস শুক্রবার লেনদেনের পুরো সময়জুড়ে স্বর্ণের দাম বাড়ে। এতে একদিনেই স্বর্ণের দাম বাড়ে ১ দশমিক ৫৪ শতাংশ। যার ওপর ভর করে গত সপ্তাহে বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম বেড়েছে দশমিক ৯৫ শতাংশ।

বিশ্বজুড়ে মহামারি করোনাভাইরাসের প্রকোশ শুরু হওয়ার পর থেকেই বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দামে ব্যাপক অস্থিরতা দেখা যাচ্ছে। মাঝে কিছুটা দাম কমলেও এপ্রিল ও মে মাসের প্রায় পুরোটা সময়জুড়ে স্বর্ণের দাম ঊর্ধ্বমুখী ধারায় থাকে।

বিশ্ববাজারে লাফিয়ে লাফিয়ে দাম বাড়ায় মে মাসে দেশের বাজারে দুই দফায় ভরিতে স্বর্ণের দাম ৪ হাজার ৩৭৪ টাকা বাড়ায় বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি। জুনের শুরুতে বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দামে বড় পতন হয়। ফলে বাংলাদেশেও স্বর্ণের দাম কমানো হয়।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে