রহমান শেলী: সম্প্রতি একজন ভদ্র মহিলা আমার কাছে এসেছিলেন। তিনিসহ তার ৫ জন ভাইবোন। কানাডায় দীর্ঘদিন থেকে এসেছেন বাবার রাখা বাসায় থাকতেন। তার বাসায় মেজো বোন শয়তান। সেই সব প্যাঁচ লাগিয়েছে। আগে যে বাসায় থাকতেন সে ফ্ল্যাট ভেঙে ফেলেছেন। দারোয়ানসহ লোকজন দিয়ে হামলা করেছেন। তাই তিনি ভাইবোনদের বিরুদ্ধে দুটি জিডি করেছেন। জিডিতে কোনো পুলিশি ব্যবস্থা হয়নি। তার স্বামী কিছুদিন আগে ব্যবসা করতে গিয়ে মামলা খেয়েছেন।

স্বামীর ভাষ্য অনুযায়ী, আমি ভালো অফিসার। বউকে বড় করে আমার কথা বলেছেন। তিনি পুলিশি হেরাজ না হয়ে বিচার পেয়েছেন। বউয়ের তাই দীর্ঘদিন ধরে স্বামীর কাছে বায়না যেন আমার কাছে তাকে নিয়ে আসেন। তিনি আসলেন স্বামীসহ। এ ধরনের পরামর্শ উকিলরা দেন সাধারণত। আমি সকল ঘটনা শুনলাম। তিনি চান তাকে পুলিশ নিয়ে অন্য কোনো ফ্ল্যাটে উঠিয়ে দিই। আমি বললাম, পুলিশ এসব বিষয়ে কোর্টের অর্ডার ছাড়া হেল্প করতে পারে না।

তিনি বললেন, অনেক বড় বড় জায়গায় অভিযোগ করেছি। কোনো প্রতিকার পাই না। আমাকে এখন কী করা উচিত? জিডিতে কাজ হয়নি। বড় বড় জায়গায় অভিযোগে কাজ হয়নি। ভাইবোনের সম্পর্কও নষ্ট করেছেন সম্পদের জন্য।

বললাম, এখন রাস্তা মামলা করে দেওয়া। যেহেতু বাবার সম্পদ হিসেবে তিনি সেই সম্পদের অংশীদার। তিনি সিদ্ধান্ত নিলেন। মামলা করবেন। আমার কাছ থেকে উকিলের ভিজিটিং কার্ডও চেয়ে নিলেন।

আমরা এসব দেখে অভ্যস্ত। বাবার রেখে যাওয়া সম্পদে সন্তানদের হাতহাতি, মারামারি। তারপর জিডি, মামলা। ওয়ারেন্ট, গ্রেপ্তার। জেল, জরিমানা। ভাবার বিষয়। সম্পদ কি জমাবেন না নিজে ব্যবহার করে যাবেন। বাবা হিসেবে চিন্তা করার দায় আপনারই।

লেখক: পুলিশ সুপার, পিবিআই, ঢাকা মেট্রো দক্ষিণ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে