দুই সন্তান মাহিন ও তুবাকে ঘিরেই যত স্বপ্ন ছিল তাসলিমা বেগমের (৩৫)। ছেলে-মেয়েকে ভালো স্কুলে পড়াবেন, সন্তানেরা বড় হবে—এমন অনেক স্বপ্ন ছিল তাঁর। কিন্তু একটি গুজবেই শেষ হয়ে গেল তাসলিমার সব স্বপ্ন। ছেলেধরা গুজবে গণপিটুনির শিকার হয়ে প্রাণটাই দিতে হয়েছে তাঁকে।

রাজধানীর উত্তর-পূর্ব বাড্ডা প্রাথমিক স্কুলে গতকাল শনিবার মেয়েকে ভর্তি করার জন্য খোঁজ নিতে গিয়েছিলেন তাসলিমা। কথাবার্তা সন্দেহজনক—কেবল এই অজুহাতে স্কুলের বাইরে এনে তাঁকে বেধড়ক মারধর করা হয়। পুলিশ তাঁকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।
তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন লক্ষ্মীপুর-২ রায়পুর আসনের সাংসদ কাজী মোহাম্মদ শহিদ ইসলাম পাপুল।

দূর্বৃত্তদের শাস্তির দাবিতে আইনী লড়াইয়ের জন্য নিজের অর্থায়নে একজন উকিল নিয়োগ করেন। এবং ১৮ বছর পর্যন্ত ইয়াতিম দুই সন্তানের লেখাপড়ার খরচ বহন করবেন বলে জানান এমপি কাজী পাপুল।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে