টাচ নিউজ ডেস্ক: সম্পৃতি বাংলাদেশী টিচার্স এসোসিয়েশন ইউকে (বিটিএ)-এর মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার (৮ই আগষ্ট) দুপুরে উত্তর লন্ডনের সাউথগেটে (London N14) অবস্থিত গ্রোভল্যান্ড পার্কে এক পিকনিকের আয়োজন করে।

বিটিএর সদস্য, তাঁদের পরিবারবর্গ ও তাঁদের নিমন্ত্রিত ঘনিষ্ঠজনের উপস্থিতি ও সবার স্বত:স্ফুর্ত সক্রিয় অংশগ্রহন এ আয়োজনটিকে যথার্থ, প্রাণবন্ত ও উপভোগ্য করে তোলে।

এতে সংগঠনের মহিলা সদস্য ও অন্যান্য সদস্যগনের পত্নীগন স্বেচ্ছায় স্বীয়গৃহে স্বহস্তে তৈরী নানা পদের গরম গরম মুখরোচক অথচ সুস্বাদু খাবার (দুপুরের খাবার) পরিবেশন করেন। সেইসঙ্গে দুপুর থেকে সন্ধ্যা অবধি সাত ঘন্টার এই মিলনমেলায় সবার নিয়ে আসা নানা ধরনের চা-মিষ্টিসহ হরেক রকমের নাস্তা একের পর এক পরিবেশন অব্যাহত ছিল। এছাড়া গানবাজনা, কৌতুক পরিবেশন ও নানা ধরণের খেলাধুলাসহ মজার মজার প্রতিযোগিতায় মেতেছিলেন সকলেই।

এ স্বর্ণালী আয়োজনের পরিকল্পনা, আয়োজন, সমন্বয় ও বাস্তবায়নে সদাব্যস্ত ছিলেন মুনজেরিন রশীদ, ডক্টর রোয়াব উদ্দীন, মোস্তফা কামাল মিলন ও ইকবাল হুসেইন।

বিটিএর সভাপতি আবু হোসেন আগত সবাইকে স্বাগত জানান এবং বৃষ্টি অবশ্যম্ভাবী জেনেও এই মিলনমেলায় উপস্থিত হওয়ার মত বদান্যতা প্রদর্শনের জন্য সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন ইকবাল হুসেইন, মুনজেরিন রশীদ, মুজিবুল হক মনি, রুবী হক (মিসেস মুজিবুল হক মনি), সাঈদা চৌধুরী (মিসেস বাসিত চৌধুরী) ও রীপা সুলতানা রাকীব । কৌতুক পরিবেশন করেন ডক্টর রোয়াব উদ্দীন, হাবিবুর রহমান ও কাইয়ুম চৌধুরী। সঙ্গীতায়োজনে সাঈদা চৌধুরী গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। উন্মুক্ত জায়গায় শব্দ-যন্ত্রের পুরো ব্যবস্থা ও এর সফল প্রয়োগ এই আয়োজনকে আকর্ষণীয় ও প্রাণবন্ত করে তোলে আর এর কৃতিত্বের দাবীদার রুবী হক। বেডমিন্টন খেলার সরঞ্জামের আয়োজন করা, সীমানা আঁকাসহ কোর্ট প্রস্তুত করা এবং খেলা ও প্রতিযোগিতা ইত্যাদি দেখভালের দায়িত্ব সুচারূপে পালন করেছেন ইকবাল হুসেইন, ডক্টর রোয়াব উদ্দিন ও আব্দুল মুক্তাদির।

পুরুষদের দৌড়ে গিয়ে বেঁধে রাখা অবস্থায় মোড়ক খুলে শুধু চকোলেটটি নিয়ে ফিরে আসা, পুরুষদের উল্টো দৌড় (পেছনের দিকে), মহিলাদের পাস দ্যা ডলসহ অন্যান্য আরও আনন্দদায়ক প্রতিযোগিতার সমন্বয় ও সেগুলো পরিচালনা করেছেন মুনজেরিন রশীদ আর এতে সহায়তা করেছিলেন মিজ মিজবাহ্ আহমেদ ও শাহীনা চৌধুরী। মোহাম্মদ শাহজাহান, ডক্টর রোয়াব উদ্দিন ও হাবীবুর রহমানের অতি প্রয়োজনীয় বহুবিধ সহায়তা সত্যিই অতুলনীয়। যা কিনা অনেককেই কৃতজ্ঞতার বন্ধনে আবদ্ধ করেছে।

অনুষ্ঠানে সবিতা শামসাদের অনবদ্য অবদান অনস্বীকার্য। অতি অল্প নোটিসে নিজ গৃহ থেকে তাঁবু এনে ভারী বর্ষণের বিড়ম্বনা থেকে এ আয়োজনটিকে বেশ পরিত্রাণ পাইয়ে দেন। উত্তর লন্ডনে খোলা মাঠে প্রাকৃতিক পরিবেশে মিলনমেলা আয়োজনের প্রস্তাবটি মূলত: আসে শওকত খানের কাছ থেকে। তিনি তুলনামূলক পরিচ্ছন্ন এই স্থানটি নির্ধারণ নিশ্চিত করতে গিয়ে বেশ পরিশ্রম করেছেন। এসব ঔদার্যের জন্য সাবিতা শামসাদ ও তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে কেউ কার্পণ্য করেননি।

খাবার পরিবেশনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছিলেন, হাসনা রহমান ও রুখসানা গনি। প্রায় দু’বছর পর একে অপরকে দেখে আবেগে আপ্লুত হন।

ঘনিষ্টজনদের মধ্যে অন্যান্য সবার মত স্ত্রী রীপা রাকীবসমেত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাই ইন দ্যা ইউকের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আব্দুর রাকীব, সাবেক কাউন্সিলার আতাউর রহমান ও প্রেরণাদানকারী বক্তা মশুদ আহমেদের প্রাঞ্জল উপস্থিতি এই অনুষ্ঠানটির শোভা বর্ধন করে।

সকলের অভিব্যক্তিতে অহরহ এমনটাই উদ্ভাসিত হয়েছে পুরো মিলনমেলা অনুষ্ঠান। সদস্যদের পরিবারবর্গ ও তাঁদের নিমন্ত্রিত ঘনিষ্টজনেরা পুলকিতচিত্তে নিজেদের অভিজ্ঞতাকে তুলে ধরেন আর এ জন্যে বিটিএকে ধন্যবাদ জানান।

দিনশেষে সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল বাসিত চৌধুরী শুরু হতে শেষাব্দি অংশগ্রহণসহ দিনটি আনন্দের সঙ্গে কাটানোর দীর্ঘ প্রক্রিয়ায় বিভিন্নভাবে সাহায্য-সহযোগিতার জন্য সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন আর প্রয়োজনীয়তা, গুরুত্ব, পরামর্শ, ও অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে ভবিষ্যতে নিয়মিতভাবে এ ধরণের আয়োজনের আশ্বাস প্রদান করেন।

পরিশেষে সভাপতি আবু হোসেন আবারও এই পিকনিক ও সকলের একত্রিত হওয়ার ক্ষেত্রে নানাভাবে সম্পৃক্ত হওয়ার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ জানান এবং বিশেষ করে এর পরিকল্পনা, আয়োজন ও সফল বাস্তবায়নে মুখ্য ভূমিকা রাখার জন্য সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল বাসিত চৌধুরী এবং মুনজেরিন রশীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও বিশেষ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন আর এমন একটি আয়োজন স্মরণীয় হয়ে থাকবে বলে ধারণা পোষণ করে ও সবাইকে শুভরাত্রি জানিয়ে এই অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

অনুষ্ঠানে অন্যান্য আরও যাঁরা অংশ নিয়েছিলেন, তাঁরা হচ্ছেন, মঞ্জুর রেজা চৌধুরী, রেহানা রহমান, জামাল চৌধুরী, শাহ্ ফারুক আহমেদ, জামাল উদ্দিন আহমেদ, মনসুর রশীদ, হাবীবুর রহমান, মোস্তাক চৌধুরী, সেলিনা রহমান ও সাজেদা আহমেদ।

তবে দুঃখের বিষয়  বিটিএর দু’জন সদস্য হঠাৎ কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার কারণে এই আয়োজনে যোগ দিতে পারেননি। উপস্থিত সকলেই তাঁদের অনুপস্থিতি খুব উপলব্ধি করেছেন এবং এ দু’সদস্যের আশু রোগমুক্তি কামনা করেছেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে