টাচ নিউজ ডেস্ক: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বেঁচে থাকলে বাংলাদেশের প্রত্যেকটা মানুষ আরও আগেই সুন্দর ও উন্নত জীবন পেতো বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।‌

মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ে যুক্ত হয়ে তিনি এ কথা বলেন।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে ‘সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য ঢাকায় নির্মিত ২৪৭৪ ফ্ল্যাটের ৫টি আবাসন প্রকল্প’ ও ‘মাদারীপুরে নির্মিত সমন্বিত অফিস ভবন উদ্বোধন’ এবং ‘জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের স্ব-অর্থায়নে বস্তিবাসীদের জন্য মিরপুরে নির্মিত ভাড়াভিত্তিক ৩০০ ফ্ল্যাট’ হস্তান্তরে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতার এই বাংলাদেশে প্রত্যেকটা মানুষ সুন্দর ও উন্নত জীবন পাবে। জাতির পিতা বেঁচে থাকলে আরও আগেই সেটা পেতো। আমাদের দুর্ভাগ্য তাকে আমাদের কাছ থেকে কেড়ে নেওয়ার ফলে সেটা পেলাম না। তবে আমরা তার সেই কাজই করে যাচ্ছি। জাতির পিতার এই দেশে কেউ গৃহহীন থাকবে না। পিছিয়ে থাকবে না।

তিনি বলেন, জাতির পিতার তার জীবন উৎসর্গ করেছেন দেশের জন্য। তিনি সব সময় একটি কথাই বলতেন, ”আমার জীবনের একমাত্র কামনা বাংলাদেশের মানুষ অন্ন পাবে, বস্ত্র পাবে, তারা উন্নত জীবনের অধিকারী হবে।”

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই বাংলাদেশের মানুষ রোগ-শোকে ছিল। শিক্ষার আলো পেত না। তাদের ভাগ্যন্নোয়ন করাই ছিল বঙ্গবন্ধুর মূল লক্ষ্য। এজন্য ছাত্রজীবন থেকেই বঙ্গবন্ধু সংগ্রাম করেছেন।

তিনি বলেন, প্রায় ১৮ হাজার পরিবার নিজ গ্রামে ফিরে গিয়েছিল। এভাবে আমরা তাদের উদ্বুদ্ধ করেছিলাম। ঢাকায় যারা থাকে আসলে এ রকম নিম্ন আয়ের মানুষ আমাদের প্রয়োজন আছে। দৈনন্দিন কাজের জন্যও প্রয়োজন আছে। বিভিন্ন ধরনের নির্মাণ কাজের জন্য প্রয়োজন আছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বস্তিতে তারা মানবেতর জীবন যাপন করে। এটি অস্বাস্থ্যকর ও বসবাসের অনুপযোগী। তাদের জন্য সুন্দর ও আধুনিক ব্যবস্থাপনায় থাকার ব্যবস্থা করে দিচ্ছি। আজকে ৩০০ পরিবারকে দিচ্ছি ৩০০ ফ্ল্যাট। পর্যায়ক্রমে সবাইকে ফ্ল্যাট দেবো।

তিনি বলেন, কেউ গ্রামে যেতে চাইলে সে ব্যবস্থাও করবো। গ্রামে ঘরবাড়ি করে দেবো। ঢাকায় ফ্ল্যাটে থাকলে মাসে ভাড়া দিয়ে থাকতে হবে। গ্রামে গেলে সব বিনামূল্যে করে দেওয়া হবে। আমাদের লক্ষ্য, একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না।

শেখ হাসিনা বলেন, পূর্বাচলে যাদের জমির মালিকানা ছিল, তাদের একটা করে প্লট করে দেওয়ার কথা ছিল। সেটা কেউ করেনি। আমাদের গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় নামমাত্র মূল্যে তাদের প্লটগুলো দিয়েছে। এজন্য মন্ত্রণালয়ের সবাইকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে