টাচ নিউজ ডেস্কঃ ময়মনসিংহে নগরীর অ্যাডভোকেট তারেক স্মৃতি মিলনায়তনের গ্রাউন্ড ফ্লোরের একটি কক্ষে স্থাপন করা হয়েছে ‘বঙ্গবন্ধু গ্যালারি’। মূলত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ ও বর্ণাঢ্য জীবনকে তুলে ধরতে এ গ্যালারি স্থাপন করেছে ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন (মসিক)।

গ্যালারির উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মসিক মেয়র ইকরামুল হক টিটু।

বঙ্গবন্ধু গ্যালারি নির্মাণের উদ্যোক্তা ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. ইকরামুল হক টিটু বলেন, বঙ্গবন্ধুকে ছাড়া বাংলাদেশ কল্পনা করা সম্ভব নয়। ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনেই আমরা স্বাধীনতার পূর্ণাঙ্গ স্বাদ পেয়েছিলাম। তিনি যদি জন্ম না নিতেন তবে লাল সবুজের পতাকা নিয়ে বিশ্বের বুকে মাথা তুলে আমরা দাঁড়াতে পারতাম না।

মেয়র আরও বলেন, আমরা বঙ্গবন্ধুর গৌরবোজ্জ্বল ও ঐতিহাসিক মূহুর্ত, মুক্তিযুদ্ধের প্রেক্ষাপট এবং দেশ গড়ার লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধুর যে কর্মপরিকল্পনা ছিল তার সব কিছুই এ গ্যালারির মাধ্যমে তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। যাতে করে নতুন প্রজন্ম এটি জানতে পারে। ভবিষ্যতে বড় পরিসরে করার চেষ্টা করব যাতে এই অঞ্চলের জনসাধারণ বঙ্গবন্ধুর ইতিহাস জানতে পারে ও বুঝতে পারে।

গ্যালারি ঘুরে দেখা গেছে, ৮০০ বর্গফুটের এ গ্যালারিতে স্থান পেয়েছে বঙ্গবন্ধুর ছাত্রজীবন, রাজনৈতিক, পারিবারিক জীবন ও রাষ্ট্র পরিচালনাকালীন শতাধিক ছবি, বঙ্গবন্ধুর বাণী, চিঠি, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বিশ্বনেতাদের মন্তব্য এবং ভাষণের ভিডিও ক্লিপ ইত্যাদি।

এখানে বঙ্গবন্ধুর পারিবারিক আনন্দঘন মুহূর্তের ছবি যেমন আছে, তেমনি রয়েছে আন্দোলন-সংগ্রামের দিনগুলোর ছবিও। কখনো তিনি বক্তৃতামঞ্চে তর্জনী উঁচিয়ে ভাষণরত, কখনো রাজনৈতিক নেতা ও সতীর্থদের সঙ্গে বৈঠকরত আবার কখনো গ্রেফতার হয়ে জেলে যাওয়ার মুহূর্ত। এমন কিছু ঐতিহাসিক ও বিরল ছবিতে উপস্থাপন করা হয়েছে স্বাধীনতার মহান স্থপতি বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে।

বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসকে স্মরণ করে এই দিনে গ্যালারিটি সবার জন্য উন্মুক্ত করা হয়। গ্যালারিটি শুক্রবার ব্যাতিত প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে