টাচ নিউজ ডেস্কঃ প্রিয়জনদের নিয়ে পটুয়াখালীর কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে আনন্দে ভ্রমণে আসেন পর্যটকরা। কিন্তু সৈকতে নামার পর প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে পর্যটকরা অনেকটা বিমোহিত হলেও ফটোগ্রাফারদের দৌরাত্ম্যে অতিষ্ঠ হয়ে পরেন তারা। এছাড়া সৈকতে পাতা বেঞ্চেও ভাড়া রাখা হয় ৪০ টাকা করে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিদিন সকাল থেকে কুয়াকাটা চৌরাস্তা, ট্যুরিষ্ট পুলিশ বক্সের সামনে এবং সৈকতের কয়েকটি পয়েন্টে দল বেধে দাঁড়িয়ে থাকেন ফটোগ্রাফাররা। একজন পর্যটক কুয়াকাটা চৌরাস্তায় নামার সঙ্গে সঙ্গে তাকে চার পাশ দিয়ে ঘিরে ফেলেন তারা। পর্যটকরা ছবি তুলবে না বলে চলে আসলে দ্বিতীয় দফায় ট্যুরিষ্ট পুলিশ বক্সের সামনে ফের আগতদের ধরা হয়। তৃতীয় দফায় সৈকতে গোসলে নামার সঙ্গে সঙ্গে ৩/৪ জন ফটোগ্রাফার পর্যটকের পেছনে পেছন গিয়ে ফটো তুলতে চেপে ধরেন। এতে বিরক্ত হয়ে ওঠেন পর্যটকরা। এছাড়া সৈকতে পাতা বেঞ্চে বসলেই ঘণ্টা প্রতি দিতে হয় ৪০ টাকা ভাড়া।

প্রশাসনের সঠিক তদারকি না থাকায় এ কাণ্ড ঘটছে বলে দাবি পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের।

ঢাকার মিরপুর থেকে কুয়াকাটা সৈকতে বেড়াতে আসা পর্যটক ইশরাফ জাহান লিমা বলেন, ‘তিন দফায় আমাদের ছবি তোলার জন্য ফটোগ্রাফাররা ধরেছেন। এতে অনকেটা বিরক্ত হয়ে হোটেলে ফিরে এসেছি। আজ আর সমুদ্রে নামিনি।’

রাজধানীর কামরাঙ্গির চর থেকে আসা পর্যটক রাহেলা-মিজান দম্পত্তি জানান, ফটোগ্রাফরদের কর্মকাণ্ড অনেকটা হেনস্তা করার মতো। আর বেঞ্চ ভাড়া আমাদের কাছ থেকে রাখা হয়েছে ঘণ্টায় ৪০ টাকা। দেশের অন্য পর্যটন কেন্দ্রেগুলোতে এ ধরনের পরিস্থিতি নেই।’

কুয়াকাটা ফটোগ্রাফার মালিক সমিতির সভাপতি আল আমিন বলেন, ‘আমাদের ২০০ সদস্য রয়েছে। নিয়ম হচ্ছে চৌরাস্তায় নয় সৈকতের আশেপাষে ফটোগ্রাফাররা দাঁড়িয়ে থাকবেন। পর্যটকরা পছন্দমতো ফটোগ্রাফারদের নিয়ে ছবি তুলবেন। এর বাইরে কেউ পর্যটকদের বিরক্ত করলে তার বিরুদ্ধে সাংগাঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

সৈকতের বেঞ্চ ব্যবসায়ী আব্বাস কাজী বলেন, ‘৪০ টাকা করে ঘণ্টা হিসেবে বেঞ্চ ভাড়া দেই। এই ভাড়া কে ঠিক করে দিয়েছে সেটা জানতে চাইলে তিনি এর সঠিক উত্তর দিতে পাারেন নি ‘

কুয়াকাটা ট্যুরিষ্ট পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার আবদুল খালেক বলেন, ‘ফটোগ্রাফারদের জন্য বেশকিছু নিয়ম করে দেওয়া হয়েছে। এর বাইরে ফটোগ্রাফররা কিছু করলে বা পর্যটকদের কাছ থেকে কোনো অভাযোগ পেলে অভিযুক্ত ফটোগ্রাফারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর অন্যা পর্যটন কেন্দ্রে যে হারে বেঞ্চ ভাড়া দেয় এখানেও সে হারে বেঞ্চ ভাড়া ঠিক করে দেওয়া হবে।’

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে