জাতীয় মানবাধিকার সমিতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নিকট বাংলাদেশের সংখ্যালঘু নির্যাতন নিয়ে প্রিয়া সাহার বক্তব্য সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের অপচেষ্টা ও সুদূরপ্রসারী চক্রান্তের অংশ বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতির চেয়ারম্যান মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা। তিনি বলেন, প্রিয়া সাহা আমেরিকার প্রেসিডেন্টের কাছে নালিশ করেছে বাংলাদেশে ৩ কোটি ৭০ লাখ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টানকে গুম করছে মুসলিম মৌলবাদীরা। প্রশ্ন হলো গুম হওয়ার পরও বাংলাদেশে কত হিন্দু আছে? তবে মুসলমান কত? আর বাংলাদেশের মানুষইবা কতো? শনিবার গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, প্রিয়া সাহার বিষয়টি নিয়ে জাতি বিক্ষুদ্ধ। আবার ষড়যন্ত্রকারীরা এটাকে ইস্যু করে সাম্প্রদায়িক উস্কানি দেওয়ারও অপচেষ্টা করছে। সে তার ব্যক্তিস্বার্থে অথবা অন্য কোনো চক্রান্তের অংশ হিসাবে তার সম্প্রদায়কে ব্যবহার করতে চেয়েছে। এমন হীন কর্ম আগেও হয়েছে। সরকারকে এ চক্রান্ত উন্মোচন করতে হবে। এটা নিয়ে কেউ যেন ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে না পারে সে বিষয়েও দেশবাসীকে সচেতন থাকতে হবে। তিনি আরো বলেন, প্রিয়া সাহা একা নয়, এটি একটি চক্র। নানা রকম সামজিক আন্দোলন, এনজিও বা কোনো প্রগতিশীল সংগঠনের ছাপ গায়ে তারা চমৎকার ছদ্মবেশ নিয়ে আছেন। ফলে প্রত্যক্ষ সহযোগিতাও পাচ্ছেন আমাদের বড় বড় নেতা বা মন্ত্রী আমলাদের। সরকারকে এসকল বিষয়ে শক্ত পদক্ষেপ গ্রহন করতে হবে। বাংলাদেশে যখন ভয়াবহ নারী ও শিশু নির্যাতন এবং উত্তর অঞ্চলে লক্ষ লক্ষ মানুষ পানি বন্দী ঠিক সেই মুহুর্তে প্রিয়া সাহার এই বক্তব্য শুধু রাষ্ট্রদ্রোহীতার শামিল নয়, বরং রাষ্ট্রের সকল দৃষ্টি তার দিকে নেয়র জন্য তার এই অপকৌশলের পিছনে কাদের ইঙ্গিত আছে তাদেরকেও খুজে বিচারের কাঠগড়ায় দাড় করাতে হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে