টাচ নিউজ ডেস্কঃ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সুপারিশে পার্লামেন্ট ভেঙে দিলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি। পাক প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিরোধীদের তোলা অনাস্থা প্রস্তাব জাতীয় সংসদে খারিজ হওয়ার পরপরই জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে প্রেসিডেন্টকে পার্লামেন্ট ভেঙে নতুন করে নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করতে আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

পাক মিডিয়া দ্য ডনের খবরে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের ক্ষমতায় টেকা-না টেকা নিয়ে বিরোধী পক্ষ যে অনাস্থা প্রস্তাব উত্থাপন করেছিল, তা খারিজ হয়ে যাওয়ার পর পার্লামেন্ট ভেঙে দিতে নিজেই পরামর্শ দিয়েছিলেন তিনি।

রবিবার (৩ এপ্রিল) দুপুরে পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ জাতীয় পরিষদে প্রস্তাবটি খারিজ হয়ে যায়। এদিন দেশটির জাতীয় পরিষদের ডেপুটি স্পিকার কাসিম খান সুরি অনাস্থা প্রস্তাবটি খারিজ করেন। বিরোধী দলগুলো স্পিকার আসাদ কায়সারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব দাখিল করায় তিনি এবারের অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন।

এর আগে পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের স্পিকার আসাদ কায়সারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব এসেছিল সরকারবিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো। আর এ কারণে আজকের অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন ডেপুটি স্পিকার কাসিম খান সুরি।

পাক মিডিয়া দ্য ডন বলছে, অধিবেশন শুরু হওয়ার কিছুক্ষণ পরেই পাকিস্তানের তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী বলেন, সংবিধানের ৫ নম্বর অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দেশের প্রতি আনুগত্য প্রত্যেক নাগরিকের মৌলিক কর্তব্য। তিনি প্রধানমন্ত্রী ইমরানের করা আগের দাবিগুলোর কথা পুনর্ব্যক্ত করে বলেন, সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করার পদক্ষেপের পেছনে বিদেশি ষড়যন্ত্র ছিল।

বক্তব্যে পাক তথ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, গত ৭ মার্চ আমাদের সরকারি রাষ্ট্রদূতকে একটি বৈঠকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল যেখানে অন্যান্য দেশের প্রতিনিধিরাও অংশ নিয়েছিলেন। বৈঠকে জানানো হয়েছিল, প্রধানমন্ত্রী ইমরানের বিরুদ্ধে একটি প্রস্তাব পেশ করা হচ্ছে।

তিনি মনে করেন, ইমরান খানের বিরুদ্ধে বিরোধীরা আনুষ্ঠানিকভাবে অনাস্থা প্রস্তাব আনার একদিন আগেই এই ঘটনা ঘটেছিল।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে