টাচ নিউজ ডেস্কঃ ‍পারস্য উপসাগর দুই লাখ লিটার চোরাই তেল একটি ট্যাংকার আটকের দাবি করেছে ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি। এই নিয়ে চলতি মাসে এ ধরনের তৃতীয় জাহাজ আটক করল ইরান।

আইআরজিসি ঘোষণা দিয়েছে, পারস্য উপসাগর এখন আর চোরাকারবারীদের জন্য নিরাপদ কোনও স্থান নয়।

আইআরজিসির দ্বিতীয় ন্যাভাল জোনের গণযোগাযোগ বিভাগের প্রধান কর্নেল গোলাম হোসেইন হোসেইনি বলেছেন, চোরাচালানকারী জাহাজটিকে এটির আট ক্রু’সহ আটক করে ইরানের দক্ষিণঞ্চলীয় বন্দরনগরী বুশেহরে নিয়ে আসা হয়েছে। আটক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় তদন্ত ও বিচারিক প্রক্রিয়া শুরু করার জন্য তাদেরকে ইরানের বিচার বিভাগের কাছ হস্তান্তর করা হয়েছে।
কর্নেল হোসেইনি জানান, বিদেশি পতাকাবাহী জাহাজটিকে জ্বালানি সরবরাহ করার চেষ্টা করার সময় পারস্য উপসাগর থেকে আরও পাঁচটি নৌকাও আটক করা হয়েছে। তবে আটক তেল ট্যাংকার বা অন্য পাঁচ নৌকা কোন দেশের সে তথ্য তিনি তদন্তের স্বার্থে প্রকাশ করেননি।

আইআরজিসি’র এই কর্মকর্তা বলেন, ইরানের জাতীয় উৎপাদন ও অর্থনীতি রক্ষা করার স্বার্থে সাগরে জ্বালানি চোরাকারবারি বন্ধ করা তার বাহিনীর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব।

তিনি আরও বলেন, পারস্য উপসাগর ও এর আশপাশের পানিসীমা আর কখনও চোরাকারবারি ও মুনাফাখোরদের জন্য নিরাপদ স্থান থাকবে না।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে