টাচ নিউজ ডেস্ক: জ্বালানি তেল ডিজেলের দাম বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে সরকার গণপরিবহনের ভাড়া রাজধানীতে সাড়ে ২৬ শতাংশ বাড়ানো হলেও সেই ভাড়া মানা হচ্ছে না। ‘নানা কৌশল ও নানা অজুহাতে’ যাত্রীদের কাছ থেকে আগের মতোই বাড়তি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে।

ঢাকার মাত্র ৫ শতাংশ বাস ডিজেলে চললেও বাকি ৯৫ শতাংশ বাসই ভাড়া বাড়িয়েছে। বলা চলে সড়কে রীতিমতো চলছে বাস ভাড়া নিয়ে ডাকাতি।

সোমবার (৮ নভেম্বর) রাজধানীর বিভিন্ন রুটে চলাচলকারী পরিবহনের চালক, সহকারী ও যাত্রীদের সঙ্গেকথা বলে এ তথ্য জানা গেছে। এর আগে রোববার গণপরিবহনের ভাড়া বাড়ায় সরকার।

জানা গেছে, আগে যে ভাড়া ২০ টাকা ছিল, সেই একই দূরত্বের ভাড়া এখন ৩০ টাকা নেওয়া হচ্ছে। অথচ সরকার নির্ধারিত ভাড়া অনুযায়ী ওই ভাড়া ২৫ দশমিক ৩০ টাকা হওয়ার কথা। বাড়তি ভাড়া নিয়ে যাত্রীদের সঙ্গে তর্ক-বিতর্কেও জড়াচ্ছেন কেউ কেউ। তর্কে জিততে না পারে কোনো কোনো যাত্রীর কাছ থেকে ২৫ টাকাও রাখা হচ্ছে।

আজমেরী গ্লোরীর সহকারী সাব্বির বলেন, ‘মহাখালী থেকে পল্টনের ভাড়া আজ থেকে ৩০ টাকা। আগে ছিল ২০ টাকা।’

 

আজমেরী পরিবহনের আরেকটি বাসেও একই ভাড়া ৩০ টাকা চাইতে দেখা গেছে। তবে আজমেরীর আরেকটি বাসে একই দূরত্বের ভাড়া ২৫ টাকা চাওয়া হচ্ছে।

নতুন ভাড়া অনুযায়ী দূরপাল্লার বাস ভাড়া কিলোমিটারপ্রতি ১ টাকা ৪২ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ১ টাকা ৮০ পয়সা নির্ধারণ করা হয়েছে।

ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরের বাস-ভাড়া কিলোমিটারপ্রতি ১ টাকা ৭০ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ২ টাকা ১৫ পয়সা করা হয়েছে।

অন্যদিকে মিনিবাসের ভাড়া হবে এর চাইতে ১০ পয়সা কম । মিনিবাসের নতুন নির্ধারিত ভাড়া বেড়ে প্রতি কিলোমিটার ২ টাকা ৫ পয়সা হয়েছে।

সেইসঙ্গে বাসের সর্বনিম্ন বাস ভাড়া ১০ টাকা, মিনিবাস ৮ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

তবে সিএনজিচালিত বাস/মিনিবাসের ক্ষেত্রে নতুন নির্ধারিত এই ভাড়া প্রযোজ্য হবে না বলে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে