ইকবাল আহমেদ লিটন: সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের রাজনীতি নিয়ে যারা মিথ্যাচার করে বেড়াচ্ছেন তাদেরকে এবং তাদের সাংগপাংগদের নিন্দা জানানোর ভাষা আমার জানা নেই৷ আজ যারা আয়ারল্যান্ড সহ ইউরোপিয়ান আওয়ামীলীগের রাজনীতিকে কলুষিত করার পায়তারা করছেন তারা হলেন রাজনীতির মাঠে চরিত্রহীন ও সুবিধাবাদী একদল মানুষ।

এক এগারোতে নেত্রীর কারা দিবস উপলক্ষ্যে ১৬ই জুলাই সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামীলীগের উদ্যোগে জুম মিটিং নিয়ে যারা বিমুখ,আসালীন ও মিথ্যা মন্তব্য করছেন তাদেরকে হুশিয়ার করে বলতে চাই আপনারা মানুষকে ভিভ্রান্ত করার মত এসব নোংরামি করা থেকে সরে আসুন। ১৬ই জুলাই জুম মিটিংয়ে অংশ নেয়ায় আমাদেরকে বিএনপি জামাত বলে আখ্যা দিয়ে কিছু বাজে কথা লেখালেখি করছেন কতিপয় আপনারা। আমি স্পষ্ট ভাষায় বলতে চাই অপপ্রচার বন্ধ করুন৷ এক এগারোর সময়ে সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামীলীগের পরীক্ষিত সব নেতা কর্মীগন ঐদিন জুম মিটিংয়ে অংশ নিয়েছিলেন,স্বয়ং আমাদের নেত্রী এই ব্যাপারে অবগত আছেন, তিনি চিনেন ,জানেন এদেরকে। নেত্রীকে নিয়ে আমার বক্তব্য জুম মিটিং রেকর্ডেড আছে এবং ফেইজবুকে আমার অনেক লেখা আছে দয়া করে পড়ে নিবেন তারপর বলবেন আমি কি জামাত-বিএনপি করি নাকি আওয়ামীলীগ করি, প্রয়োজন হলে আমার এলাকায় সাভারে আমার ও আমার পরিবারের ব্যাপারে খোজ নিয়ে দেখতে পারেন। আপনারাই হচ্ছেন বিতর্কিত ব্যাক্তি কারণ দলের জন্য সাংগঠনিক কাজ না করে অসাংসঠনিক কাজ ও নেত্রীর দেয়া ইউরোপিয়ান আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের বিরুদ্ধে প্রতিনিয়তই কুতসা রটিয়ে করে তার প্রমান দিয়ে যাচ্ছেন। মূলত গুটিকয়েক আপনারা ও বাংলাদেশ থেকে এক দুইজন ধান্দাবাজ এর ইন্ধন দিয়ে যাচ্ছেন৷ অতীতের কথা মনে করিয়ে দিতে চাই৷ এই আপনারাই একসময় অনিল দা ও গনি ভাইয়ের বিরুদ্ধে চলমান দন্দের খোড়াক জুটিয়েছিলেন, গনি সাহেবকে নিয়ে এমন কিছু খারাপ কথা নাই যে বলেন নাই, আজ আবার সেই গনি সাহেবকে নিয়েই আরেকজনের বিরুদ্ধে নাচানাচি করছেন, এই হল আপনাদের চরিত্র, যখন যেখানে যেমন। এই স্বভাবের কারনেই নেত্রী একবার বছর কয়েক আগে হোটেল রুম থেকে আপনাকে বের করে দিয়েছিল, বুঝে নেন আমি কার কথা বলছি। আমরা এই সব নিয়ে কথা বলতে চাই না৷ আপনারা সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সন্মানিত সভাপতি এম এ নজরুল ভাই ও সন্মানিত সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর ভাইকে চ্যালেঞ্জ ছুরে দিয়েছেন৷ ভাইরে চ্যালেঞ্জ করে সমানে সমান ব্যাক্তি, আপনি কি তাদের সমান হতে পেরেছেন যদি সমানে সমান হতে পারেন তাহলে চ্যালেঞ্জ করতে আসেন। আমার প্রশ্ন আপনারা নিজেকে কি মনে করেন জানিনা তবে ছাগলের তিন নম্বর বাচ্চার মতো লাফালাফি করে কোনো লাভ নেই৷

আওয়ামী লীগে বরাবরই কিছু পরগাছা আছে কিন্তু আমি আপনাদের পরগাছা বলতে চাই না, আমি বিশ্বাস করি আপনারাও আওয়ামীলীগ করেন। মূল দলের বাহিরে গিয়ে কেউ কখনোই কিছুই করতে পারে নাই,ইতিহাসে এর প্রমান ভুরি ভুরি। সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামীলীগের জন্য ক্ষতিকর এমন কিছুই আপনারা করবেন না আশাকরি।কিন্তু দলের বিরুদ্ধে যারাই অসাংগঠনিক কাজ করবেন, দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করবেন, অন্যায়ভাবে নজরুল ভাই ও মজিবুর ভাইয়ের বিরুদ্ধে অপপ্রচার করবেন তাদের প্রতিহত করতে যা যা করার দরকার আমরা সেই কাজই করবো। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন যেখানে অন্যায় সেখানেই প্রতিবাদ। সাধু সাবধান।

লেখক: ইকবাল আহমেদ লিটন সদস্য সচিব,
আহ্বায়ক কমিটি আয়ারল্যান্ড আওয়ামীলীগ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে