টাচ নিউজ ডেস্কঃ যানবাহনের তুলনায় ফেরি কমিয়ে দেওয়ায় দৌলতদিয়া ঘাটে পণ্যবাহী ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যানচালকদের ভোগান্তি বেড়েছে।

বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে যানবাহন ও যাত্রী পারাপার নির্বিঘ্ন রাখতে ছোট-বড় মিলে আগে ২৩টি ফেরি চলাচল করত। কিন্তু বিভিন্ন সময় ফেরির যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে পাঁচটি ফেরি ডকইয়ার্ডে পাঠানো হয়। অবশিষ্ট ১৮টি ফেরির মধ্যে শনিবার সকালে যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে ইউটিলিটি (ছোট) ফেরি ‘বনলতা’ বিকল হয়ে পড়ে। সেটিকে মেরামতের জন্য পাটুরিয়ার ভাসমান কারখানায় নেওয়া হয়েছে। এর আগে শুক্রবার আরেকটি ফেরিকে কারখানায় নেওয়া হয়েছে। ফলে ঘাটে এখন ফেরি সচল আছে ১৬টি। ফেরি স্বল্পতার জন্যই মূলত ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে পণ্যবাহী ট্রাকচালকদের।

সরেজমিনে মঙ্গলবার (০৫ এপ্রিল) সকালে দৌলতদিয়া ফেরিঘাট এলাকায় দেখা যায়, ফেরিঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের বাংলাদেশ হ্যাচারি পর্যন্ত তিন কিলোমিটার এলাকায় ৩ শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাক ফেরি পারের অপেক্ষায় রয়েছে। অন্যদিকে গোয়ালন্দ মোড় থেকে রাজবাড়ী-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক সড়কে নেই পণ্যবাহী ট্রাক ও কাভার্ডভ্যানের সারি।

দিগন্ত পরিবহনের বাসচালক ইয়াছিন আলী বলেন, সকালে চুয়াডাঙ্গা থেকে দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে এসেছি। কোনো ধরনের ভোগান্তি ও সিরিয়াল ছাড়াই ফেরিতে উঠতে পেরেছি। অনেক দিন পর সরাসরি ফেরিতে উঠতে পেরে ভালো লাগছে।

ট্রাকচালক বিকাশ হালদার বলেন, যাত্রীবাহী বাস ভোগান্তি ছাড়াই ফেরির নাগাল পেলেও আমাদের মতো ট্রাকচালকদের ফেরির নাগাল পেতে সময় লাগছে ৮-১০ ঘণ্টা। ফেরি কমিয়ে দেওয়ার কারণে এই ভোগান্তি সৃষ্টি হয়েছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্পোরেশন (বিআইডব্লিউটিসির) দৌলতদিয়া ফেরিঘাটের ব্যবস্থাপক মো. শিহাব উদ্দিন বলেন, ২-৩ কিলোমিটার ট্রাকের সিরিয়াল ছাড়া তেমন যানবাহনের চাপ নেই। বর্তমানে এই রুটে ১৬টি ফেরি চলাচল করছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে