টাচ নিউজ ডেস্কঃ বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) দেয়া তথ্যমতে, চলতি বছরের মে মাসে দেশে সার্বিক মূল্যস্ফীতি বেড়ে ৭ দশমিক ৪২ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

রোববার (১৯ জুন) এ তথ্য প্রকাশ করে বিবিএস। বিবিএসের তথ্যে বলা হয়, মে মাসে দেশে সার্বিক মূল্যস্ফীতি বেড়ে ৭ দশমিক ৪২ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। খাদ্যপণ্যে মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৮ দশমিক ৩ শতাংশ।

এর আগে এপ্রিল মাসে মূল্যস্ফীতি ছিল ৬ দশমিক ২৯ শতাংশ, যা ১৮ মাসে সর্বোচ্চ। এবার সে রেকর্ড ভেঙে ফেলল মে মাসের মূল্যস্ফীতির হিসাব।

মূল্যস্ফীতি নিয়ে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে অভ্যন্তরীণ বাজারে কঠোর তদারকি করে দেশে উৎপাদিত পণ্যের মূল্যবৃদ্ধি ঠেকানো সম্ভব। প্রয়োজন চালের দাম সহনীয় রাখতে বাজার কৌশল নির্ধারণ করা; পাশাপাশি মূল্যস্ফীতির চাপে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত গরিব মানুষের বাজেটের মাধ্যমে নগদ ও খাদ্যসহায়তা দিয়ে সুরক্ষা দিতে হবে। কেননা, মূল্যস্ফীতি একধরনের করের মতো। জিনিসপত্রের মূল্যবৃদ্ধির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে মজুরি বা আয় না বাড়লে সীমিত আয়ের মানুষের ওপর চাপ বাড়ে। তাদের প্রকৃত ক্রয়ক্ষমতা কমে যায়।

আশপাশের দেশগুলোর তুলনায় বাংলাদেশের মূল্যস্ফীতি তুলনামূলক কম। গত এপ্রিলে বাংলাদেশে মূল্যস্ফীতি ৬ দশমিক ২৯ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। অন্যদিকে গত এপ্রিলে ভারতে ৭ দশমিক ৭৮ শতাংশ, পাকিস্তানে ১৩ দশমিক ৪ শতাংশ, শ্রীলঙ্কায় ২৯ দশমিক ৮ শতাংশ ও নেপালে ৭ দশমিক ২৮ শতাংশ মূল্যস্ফীতি হয়েছে। আর গত এপ্রিলে যুক্তরাজ্যে ৪০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ সাড়ে ৮ শতাংশ মূল্যস্ফীতি হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে মূল্যস্ফীতি উঠেছে সাড়ে ৮ শতাংশে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে