টাচ নিউজ ডেস্ক:
দুর্নীতি দমন কমিশনেই (দুদক) দুর্নীতি আছে মন্তব্য করে কমিশনের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেছেন, তবে আমরা তা দূর করার, স্বচ্ছতা আনার চেষ্টা করছি।

রবিবার সকাল ১০টায় ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ-ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে সপ্তাহব্যাপী যৌথ কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

দুদক এবং পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্স-ন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) এর উদ্যোগে এ কর্মশালার আয়োজন করা হয়।

ইকবাল মাহমুদ বলেন, দুদকের সক্ষমতার অভাব রয়েছে। তদন্তে দুর্বলতা রয়েছে। প্রতিষ্ঠান চলমান রাখতে হলে অন্যদের সঙ্গে তাল মিলিয়ে মিথস্ক্রিয়া করে কাজ করতে হয়। কীভাবে তদন্ত করতে হয় দুদক কর্মকর্তাদের তা জানতে ও শিখতে হবে।

তিনি বলেন, ‘কাজের ক্ষেত্রে দেশের প্রতি ও দেশের মানুষের প্রতি কমিটমেন্ট থাকতে হবে। দুর্নীতি দমন কমিশনেই দুর্নীতি আছে। তবে আমরা তা দূর করার, স্বচ্ছতা আনার চেষ্টা করছি।’

কর্মস্থলে কাজে লাগবে এমন শিক্ষা নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ‘প্রতিষ্ঠান বা সরকার সব করতে পারবে না। তবে চেষ্টা করতে হবে। এজন্য পারস্পরিক সহযোগিতা প্রয়োজন।’

তিনি বলেন, ‘দুর্নীতি থাকবেই তবে তা দমনে কাজ করতে হবে। দুদক এখনো পুরোপুরি মানুষের আস্থা অর্জন করতে পারেনি। সেই আস্থা অর্জনে কাজ করতে হবে। সকলের একযোগে চেষ্টা করা ছাড়া দুর্নীতি দমন করা সম্ভব নয়।’

এসময় চলমান সাইবার অপরাধ দমনে পুলিশ সদস্যদের আরও বেশি আধুনিক ও কৌশলী হতে হবে বলে মন্তব্য করেন ইকবাল মাহমুদ।

অনুষ্ঠানে ডিএমপি কমিশনার মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘প্রযুক্তি নিয়মিত চেঞ্জ হয়; তাই আপডেট থাকতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘ঘুষ, লোভে না পড়লে মহৎ কিছু করা সম্ভব। আর লোভে পড়লে শুধু অর্থ পাওয়া সম্ভব।’

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘সিটিটিসির সবাই ঝুঁকি নিয়ে দেশের জন্য কাজ করছে। দুদক আর পুলিশ দেশের জন্য একসঙ্গে কাজ করবে।’

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে