বিএনপি জামাত জোট সরকারের দুঃশাসন বাঙালি জাতির কলংকিত ইতিহাস। স্বাধীনতা বিরোধীদের সাথে জোট বেধে বিএনপি জনগণের রায় চুরি করে ক্ষমতায় এসেই মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী নিরিহ জনগণ, অাওয়ামী লীগ নেতাকর্মী সহ সংখ্যালঘুদের নিধনযজ্ঞ শুরু করে। গণতন্ত্রকে ডাস্টবিনে ফেলে মানুষের বাক স্বাধীনতা কেড়ে নেয়। ১৯৭১ সালের মতো অাওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও সংখ্যালঘু সম্প্রদায় জীবন বাঁচাতে ভারতে অাশ্রয় নেয়। প্রতিদিন শত শত নেতাকর্মীদের খুন, ধর্ষন, অগ্নিসংযোগ করে সারাদেশে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। সদ্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও সংসদে বিরোধী দলীয় নেতা শেখ হাসিনাকে গৃহবন্দী করে রাখে। সভা,সমাবেশ মিছিল মিটিংয় বন্ধ করে দেয়। অাওয়ামী লীগ নেতাকর্মী সহ জাতীয় নেতৃবৃন্দ অাত্মগোপন করতে বাধ্য হয়।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের চরম দুর্দিনে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সদয় অনুমতির মাধ্যমে সাবেক ছাত্রনেতা ও সাংবাদিক শেখ উজ্জ্বল ও সাবান মাহমুদের নেতৃত্বে কয়েকজন সাংবাদিক, সাবেক ছাত্রনেতা, ফুটপাতের কয়েকজন কণ্ঠশিল্পী, বাদক বাউল সাধুগুরু একত্রিত হয়ে কাফনের কাপড় পরে রাজপথে ঝাপিয়ে পড়ে। তারা বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দুঃশাসনমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার শপথ নিয়ে ঢাকার রাজপথে মিছিল মিটিংয়,সভা,সমাবেশ,মানবন্ধন, মানবপ্রাচীর, সঙ্গীতের মিছিল, পথনাটক,পালাগানসহ নানান কর্মসূচী বাস্তবায়ন করে। বারবার পুলিশের নির্যাতন, হামলা মামলা দিয়ে দমাতে পারেনি তাদের কারণ তারা সবসময় কাফনের কাপড় গায়ে জড়িয়ে অাওয়ামী লীগের সকল কর্মসূচীগুলোতে ঝাপিয়ে পড়তো।
ওয়ান ইলেভেনে যখন অধিকাংশ অাওয়ামী লীগ নেতা মীর জাফরের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয় তখন অাওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক অফিসে তাদের প্রাণপ্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে কথা বলায় প্রকাশ্যে তৎকালীন অাওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মুকুল বোসসহ কেন্দ্রীয় কয়েকজন নেতাকে লাঞ্ছিত করে। বন্দী শেখ হাসিনার সাবজেলের সামনে প্রকাশ্যে বিক্ষোভ করে। তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো জিল্লুর রহমানের পরামর্শে পালাগান তৈরি করে সারাদেশে হকারের মত প্রচার করে জননেত্রী শেখ হাসিনার মুক্তির দাবীতে সাধারন জনগনকে ঐক্য বদ্ধ করে।

কতরাত, কতদিন তারা মুড়ি খেয়ে ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ অাওয়ামী লীগ কার্যালয়ে নির্ঘুম সময় কাটিয়ে তা উক্ত এলাকার নেতাকর্মীরাই ভালো বলতে পারবে। বলতে পারবেন, অাওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক জননেতা ওবায়দুল কাদের, দপ্তর সম্পাদক ড অাব্দুস সোবহান গোলাপ , যুবলীগের নানক অাজম কমিটি, বলতে পারবেন জাতীয় নেতা অা ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, বলতে পারবেন যুব মহিলা লীগের সভাপতি নাজমা আক্তার,সাধারণ সম্পাদক অপু উকিল, ছাত্রলীগের লিয়াকত শিকদার,নজরুল ইসলাম বাবু, সাইফুজ্জামান শিখর, মারুফা অাক্তার পপি , স্বেচ্ছাসেবক লীগের গাজী মেসবাউল হোসেন সাচ্চু।

বাংলাদেশ আওয়ামী সাংস্কৃতিক ফোরাম(অাসাফো) র সভাপতি শেখ উজ্জ্বল এর নেতৃত্বে অাওয়ামী লীগের দুঃসময়ে সাংবাদিক সাংস্কৃতিক নেতাকর্মীদের জীবনবাজি রেখে রাজপথে অান্দোলন সংগ্রাম করার বিষয়ে সবাই জানেন যারা রাজপথে সক্রিয় ছিলেন। জীবন যৌবন পরিবার পরিজন সব বিসর্জন দিয়ে রাজপথে ঝাপিয়ে পড়তেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে ভালবেসে। দুঃসময়ে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে স্বাধীনতার ইতিহাস বিকৃতি বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার পরিকল্পনা ও সম্পাদনায় বহু ডকুফ্লিম নাটক, প্রামান্যচিত্র নির্মান করে সারাদেশে হকারের মত প্রচার করেছিল শেখ উজ্জ্বল এর নেতৃত্বে এইসব সাংবাদিক সাংস্কৃতিক নেতাকর্মীরা।

কাফনের কাপড় পরে, জীবনের মায়া ত্যাগ করে , জননেত্রী শেখ হাসিনা নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তবায়ন করার শপথ নিয়েছিল যারা অাজ তারা কোথায়? গত ১০ বছরে দুর্নীতিবাজ, ক্যাসিনোবাজ নেতারা তাদেরকে শুধু অবহেলা করেই ক্ষ্যান্ত হননি তারা অনেক মরমী শিল্পী সাংবাদিকের জীবন চলার শেষ সম্বলটুকুও কেড়ে নিয়েছে। পদ পদবী বা জনগণের সেবা করার সুযোগ দেয়া হয়নি।

শুদ্ধি অভিযানের মাধ্যমে সৎ,ত্যাগী ও বারবার বঞ্চিতদের মূল্যায়ন করার ঘোষণা দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। তাই বাংলাদেশের অবহেলিত, বঞ্চিত, অবমূল্যায়িত সাংবাদিক সাংস্কৃতিক নেতাকর্মীদের প্রাণের দাবী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অাগামীর সম্মেলনে বঙ্গবন্ধু গবেষক ও লেখক, সাবেক ছাত্রনেতা, সাংবাদিক সাংস্কৃতিক কর্মী, জননেত্রী শেখ হাসিনার পরিক্ষীত চিরবঞ্চিত সৈনিক শেখ উজ্জ্বল এবং তার সহযোদ্ধা সাংবাদিক শাবান মাহমুদ, অাসাফো সা সম্পাদক আরজু খান, মো মুজিবুর রহমান, সাংস্কৃতিক সংগঠক ফেরদৌস আলম রাজু, কণ্ঠশিল্পী রীনা আমিনকে গুরুত্বপূর্ণ পদে দ্বায়িত্ব দিয়ে সততা, ত্যাগ, অাদর্শ ও চেতনার রাজনীতির বিজয় কেতন উড়াবেন বিশ্বনন্দিত বিশ্বনেতা, গণতন্ত্রের মানসকন্যা, অাওয়ামী লীগ সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা এই প্রত্যাশা সকল সচেতন সমাজের।

অাব্দুল মজিদ বিশ্বাস, কলামিস্ট ও সাংবাদিক
Email: Abdulmozid@gmail.com

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে