হুসাইন (আঃ) কে ?
ড. নূরে আলম মুহাম্মাদী

হুসাইন(আ:) কে? তা কি জানো? তাহলে বলি শোন।

হুসাইন হচ্ছে সমুদ্র, মহাসমুদ্র।
না, না!
হুসাইন সাগর মহাসাগরের চেয়েও বিশাল,
মহাসাগর যেখানে হারিয়ে যায়,
মহাসাগর যার মধ্যে নিজেকে ছোট্ট, হীন
ও অসহায় ভাবে,
যার হৃদয়ের মাঝে মমতার কোন কুল কিনারা নেই,
যিনি অসীম, ইশ্বরের রঙ্গে রঙ্গীন।

তাহলে,
হুসাইন পাহাড়সম দৃঢ় চিত্ত ব্যক্তিত্ব।
না, না!
হুসাইনের দৃঢ়তার কাছে পাহাড়ও নত হয়ে আসে,
পাহাড় নড়তে পারে, কিন্তু
হুসাইনের সিদ্ধান্ত অনঢ়, অবিচল,
পর্বতমালার কাঠিন্যতা যাকে দেখে
লজ্জিত হয়,
তাদের অবনত শির ঝুকে যার পদতলে,
তিনি হুসাইন, হুসাইন।

তাহলে,
হুসাইন সূর্য! হুসাইন সৌর জগতসম।
না, না!
হুসাইনের আলোর কাছে
সূর্যের আলো?
তা তো অন্ধকারসম।
হুসাইনের কাছ থেকে যে, আলোকিত হয় সূর্য,
হুসাইনের কাছ থেকে যে,
আলো নিয়ে ধন্য হয় সূর্য।
সৌরজগতের সব কিছু যার করতলগত।
সৌরজগত যে হুসাইনের মহত্বের কাছে বালুকণার মত।

হুসাইন(আ:) কে? তা কি জানো? তাহলে বলি শোন।

হুসাইন এ জগত সে জগত মহাজগত ছেড়ে জগতহীন এক অস্তিত্বের নাম।
যাঁর অস্তিত্ব আল্লাহর খেলাফত বহন করে,
যাঁর মধ্যে রাসূলের গুণাবলী জ্বলজ্বল করে,
যাঁর আদর্শে শেরে খোদা আলীর কণ্ঠস্বর বেঁজে ওঠে,
যাঁর বেদনায় জান্নাত রমনী কেপে কেপে কাঁদে।

হুসাইন!!
যার কিছুই নাই,
যা কিছু ছিল তার সব হয়েছে আল্লাহর রাহে ম্লান।
যিনি সীমাবদ্ধ নন কোন কালে,
যিনি মহাকালের সীমানা পেরিয়ে ছুটে চলেন সপ্ত আসমানে খোদায়ী আরশের দিকে।

হুসাইন!
তলোয়ারকে যে হার মানিয়েছে,
তলোয়ার যার আঘাতে ভোতা হয়ে গেছে,
অর্জন করেছেন যিনি বিজয়
তলোয়ারের উপর রক্তের,
যার বদৌলতে আজো আমরা
রাসূলের সুন্নত ধরে আছি,
পথে চলি কোরআন ও আহলে বাইতের।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে