আবু সায়েম শাহীন:
রাজধানীতে ডেঙ্গুর ভয়াবহতা আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে। ডেঙ্গু ঢাকার বাইরেও ছড়িয়ে পড়েছে ব্যাপকভাবে। দেশের ৬৪ জেলায় ডেঙ্গু ছড়িয়ে পড়েছে।আজ সারাদেশের মানুষ এক মহাআতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। কখন কে আক্রান্ত হয় সে ভয়ে রয়েছে। এবার বর্ষা মৌসুম শুরু হওয়ার আগেই ডেঙ্গুর আগ্রাসন দেখা দিয়েছে। সরকারি হিসাবে ডেঙ্গুতে আক্রান্তের সংখ্যা ১৩ হাজারেরও বেশি। এ বছরের জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। থেমে থেমে বৃষ্টির কারণে এডিস মশাবাহিত ডেঙ্গুজ্বরের প্রকোপ ক্রমেই ভয়াবহ আকার ধারণ করছে। রাজধানীর বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে এত রোগী ভর্তি হয়েছে- যা অকল্পনীয়। হাসপাতালে তিল ধারণের ঠাঁই নেই। হাসপাতালের মেঝেতেও জায়গা নেই। এক হাসপাতালে জায়গা না পেয়ে রোগীর স্বজনরা দিশেহারা হয়ে ছুটছে অন্য হাসপাতালে। অনেকেই কান্নায় ভেঙে পড়েছেন।

পরিকল্পিত কার্যকর উদ্যোগ এবং নাগরিক সচেতনতাই কেবল পারে ডেঙ্গুর ভয়াবহতা থেকে মানুষকে মুক্তি দিতে।

ডেঙ্গু থেকে বাঁচতে ডেঙ্গু মশা নিধন করতে হবে। সরকারের পাশাপাশি সাধারণ মানুষকেও এগিয়ে আসতে হবে। ডেঙ্গু মশা থেকে বাঁচতে যাঁর যাঁর বাড়ির সামনে–পেছনে সব জায়গা পরিষ্কার রাখতে হবে। ময়লা–আবর্জনা যত্রতত্র ফেলা যাবে না। মনে রাখতে হবে জীবন আপনার এবং আপনাকেই প্রথমে এগিয়ে আসতে হবে। কোনো সমস্যা মোকাবিলায় সরকারের পাশাপাশি সাধারণ মানুষ এগিয়ে না এলে সরকারের পক্ষে একা সমস্যা উত্তরণ কঠিন হয়। সরকার ও জনগণের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আমাদের ডেঙ্গু সমস্যা দূর হবে, এই প্রত্যাশা করি।

লেখক: আবু সায়েম শাহীন,সাংগঠনিক সম্পাদক, মোহাম্মদপুর খানা আওয়ামীলীগ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে