‘আমেরিকা আমাদের সকলের। কারো ব্যক্তিগত সম্পদ নয়’। চার জাতিগত সংখ্যালঘু মার্কিন নারী কংগ্রেস সদস্যকে নিয়ে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বর্ণবাদী মন্তব্যের এভাবেই সমালোচনা করেছেন সাবেক ফার্স্টলেডি মিশেল ওবামা। খবর বিবিসি ও রয়টার্সের।

গত সপ্তাহে ট্রাম্পের ওই মন্তব্যে শুক্রবার এক টুইট করে প্রথমবারের মতো মুখ খুলেছেন তিনি। মিশেল তার টুইটে লিখেছেন, ‘সত্যিকারার্থে আমাদের দেশকে যেটি মহান করেছে সেটি হচ্ছে এর বৈচিত্র্য।

আমরা এখানে জন্ম নিয়েছি বা এখানে শরণার্থী হিসেবে আশ্রয় চেয়েছি, আমাদের সবার জন্য একটি জায়গা আছে। আমাদের অবশ্যই মনে রাখতে হবে, এটি আমার বা আপনার নয়, আমাদের সবার আমেরিকা।’

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাপত্নী অবশ্য তার টুইটে ট্রাম্পের নাম উল্লেখ করেননি। তবে এটি যে তাকে উদ্দেশ্য করেই তা স্পষ্ট। গত রোববার ট্রাম্প প্রতিনিধি পরিষদের সদস্য আলেক্সান্দ্রিয়া ওকাসিও-কর্তেজ, ইলহান ওমর, আয়ানা প্রেসলি এবং রাশিদা তালিবকে উদ্দেশ্য করে বলেছিলেন, তারা এমন দেশ থেকে এসেছেন যেগুলোর সরকার সম্পূর্ণ বিপর্যয়কর এবং তাদের সেখানে চলে যাওয়া উচিত।

‘দ্য স্কোয়াড’ হিসেবে পরিচিত এই নারীরা ২০১৮ সালের মধ্যবর্তী নির্বাচনে প্রথমবারের মতো প্রতিনিধি পরিষদের সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন।

এই বর্ণবাদী মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার কংগ্রেসে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব আনা হয়। ট্রাম্প ও রিপাবলিকান দলের যারা তার পক্ষ নিয়েছিলেন, প্রতীকীভাবে তাদের লজ্জা দিতেই এ উদ্যোগ নেয়া হয়।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় প্রতিনিধি পরিষদে নিন্দা প্রস্তাবের ওপর ভোটাভুটিতে পক্ষে ২৪০ ও বিপক্ষে ১৮৭ ভোট পড়ে। এ প্রস্তাব পাসের মাধ্যমে কার্যত ট্রাম্পকে বর্ণবাদী তকমা দিল কংগ্রেস।

তবে এরপরও ট্রাম্প বুধবার মিনেসোটায় এক সমাবেশে ইলহান ওমরের বিরুদ্ধে বর্ণবাদী মন্তব্য করেন। ওই সমাবেশেই ট্রাম্পের সমর্থকরা ‘তাকে ফেরত পাঠাও’, ‘তাকে গ্রেফতার করো’ ইত্যাদি স্লোগান দেয়।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে