টাচ নিউজ ডেস্ক: যেসব বাংলাদেশি সিনোফার্মের টিকা নিয়েছেন তারা ওমরাহ বা হজ পালনের জন্য সৌদি আরব যেতে পারবেন না। দেশটিতে যেতে হলে সংশ্লিষ্টদের অবশ্যই সৌদি সরকারের অনুমোদিত টিকা নিতে হবে। এ নিয়মে সৌদি সরকারের অনুমোদিত টিকা হতে হবে। এ নিয়ম সৌদি আরবে বাংলাদেশি শ্রমিকদের জন্যও প্রযোজ্য| এ কারণে দ্রুত সৌদি সরকারের সঙ্গে আলোচনা করে বিষয়টির সুরাহা করার তাগিদ দিয়েছেন হজ এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন আব বাংলাদেশ(হাব)।

রবিবার ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত এক  সেমিনারে এ আহ্বান জানানো  হয়েছে।

হাব সভাপতি তসলিম জানান, ১৩ আগস্ট পর্যন্ত বাংলাদেশে ১ কোটি টিকা ৪৫ লাখ ৭০ হাজার সিনেফার্মের টিকা এসেছে। সেই হিসাবে বিপুলসংখ্যক বাংলাদেশি এই ভ্যাকসিন নিয়েছেন।

সেমিনারে যুক্ত হয়ে সৌদি আরবের জেদ্দায় বাংলাদেশ হজ কাউন্সেলর মোঃ জহিরুল ইসলাম জানান, সৌদি আরবে যেতে হলে অবশ্যই সৌদি সরকারের নির্দেশিত ভ্যাকসিন নিতে হবে। এখনই বিষয়টি নিয়ে কাজ করলে সিনোফার্মের টিকার বিষয়ে সৌদি সরকার ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নিতে পারে।

হাব সভাপতি শাহদান হোসাইন তসলিম খান জানান,  সিনেফার্মের টিক ওমরাহ যাত্রীদের জন্য সৌদি আরব  কর্তৃক অনুমোদিত নয়। কিন্তু বাংলাদেশে বর্তমানে সিনেফার্মের টিকাই দেওয়া হচ্ছে। তাই সিনেফার্মের টিকা যাদে সৌদিআরব কর্তৃপক্ষ অনুমোদন করে, সে জন্য কূটনৈতিক তৎপরতা চালানো প্রয়োজন। অথবা বাংলাদেশি ওমরাহ যাত্রীদের জন্য সৌদি সরকার নির্ধারিত ফাইজার, মডার্না অ্যাট্রিাজেনেকা, জনসন অ্যান্ডি জনসন এসবের যেকোনো একটি টিকার দেওয়ার উদ্যোগ নিতে হবে। ওমরাহ যাত্রীরা ফ্লাইটে ওঠার আগে পিসিআরে টেস্ট পজেটিভ হতে হবে। যাতে অর্থেনৈতিকভাবে যাত্রীরা ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেই ব্যবস্থা এখনই নিতে হবে। ওমরাহ যাত্রীদের বর্তমানে সৌদি এয়ারলাইনস ও বিমানের প্রকাশিত ভাড়া অনেক বেশি। নির্ধারিত ভাড়া কমানোর উদক্ষেপ নিওয়া দরকার বলেও তিনি জানান।

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী মোঃ মাহবুবর আলী বলেন, ওমরাহর যাত্রী ফ্লাইটে ওঠার ৭২ ঘন্টার মধ্যে পিসিআর টেস্ট করাতে হবে, পজেটিভ এলে যেতে পারবে না। এ ক্ষেত্রে প্রবাসীদের টিকিট রিশিডিউল করা হয়। ওমরাহ যাত্রীদের ক্ষেত্রেও তাই করা ‍উচিত। সিনোফার্মের টিকা নিয়ে ওমরা করার বিষয়ে সৌদি আরবের নির্দেশনা প্রয়োজন।

বাংলাদেশে সৌদি রাষ্ট্রদূত ঈসা ইউছুফ ঈসা আলদুহাইলান বলেন, কোভিড মাহামারীর কারণে ৬০ হাজার যাত্রীর ওমরাহ পালনের বাধবাধকতা থাকলেও ভবিষ্যতে তা বাড়ানো হবে। ওমরাহ যাত্রীদের বিমান ভাড়া কমানো বিষয়েও তিনি একমত পোষণ করেন।

হাব সবাপতি শাহাদাত হোসাইন তসলিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে যুক্ত ছিলেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মোঃ ফরিদুল হক খান, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী মোঃ মাহবুব আলী। এছড়া ধর্ম সচিব মোঃ নুরুল ইসলাম, বেসামারিক বিমান পরিবহন ও পর্যটান মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ মোকাম্মেল হোসেন, বাংলাদেশে নিয়োজিত সৌদি রাষ্ট্রদূত ঈসা ইউছুফ ঈসা আলদুহাইলান সংযুক্ত ছিলেন। আরো সংযুক্ত ছিলেন বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. আবু সালেহ মোস্তাফা কামাল ও সৌদি অ্যারাবিয়ার এয়ারলাইন্সের কান্ট্রি ম্যানেজার তারিক এ আল-ওয়াইদিও।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে