টাচ নিউজ ডেস্কঃ মিয়ানমারে সামরিক বাহিনীর আক্রমণে আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা সেভ দ্য চিলড্রেনের দুইজন কর্মী প্রাণ হারিয়েছেন। মঙ্গলবার (২৮ ডিসেম্বর) আন্তর্জাতিক ওই সংস্থাটি বিবৃতির মাধ্যমে তথ্যটি নিশ্চিত করেছে। এর আগে হামলার পর থেকে ওই দুই কর্মী নিখোঁজ ছিলেন বলে দাবি করেছিল সংস্থাটি।

বুধবার (২৯ ডিসেম্বর) প্রতিবেদন প্রকাশের মাধ্যমে ব্রিটিশ মিডিয়া বিবিসি নিউজ ও কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা জানিয়েছে, গত শুক্রবার মিয়ানমারের পূর্বাঞ্চলীয় কায়াহ প্রদেশে দেশটির সামরিক বাহিনীর একটি হামলায় নিহত ৩৫ জনেরও বেশি লোকের মরদেহ উদ্ধার করে সেভ দ্য চিলড্রেন। ভয়াবহ ওই হামলায় নিহতদের মধ্যে নারী ও শিশুরাও রয়েছেন। মূলত ওই হামলাতেই সেভ দ্য চিলড্রেনের দুই কর্মী প্রাণ হারান। এই হামলা ও প্রাণহানির জন্য সরাসরি মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীকে দায়ী করেছে আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থাটি।

সেভ দ্য চিলড্রেনের তথ্য মতে, আক্রমণের সময় ইস্টার্ন কায়াহ প্রদেশে সামরিক বাহিনীর সদস্যরা লোকজনকে গাড়ি থেকে টেনে হিঁচড়ে বের করে। এরপর কাউকে কাউকে গ্রেফতার করে। আবার অন্যদের হত্যা করে তাদের শরীর আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া হয়। আক্রমণে নিহতদের মধ্যে নারী ও শিশুরা থাকলেও মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর দাবি, তারা ওই এলাকায় বেশ কয়েকজন সশস্ত্র সন্ত্রাসীকে হত্যা করেছে।

আন্তর্জাতিক এই দাতব্য সংস্থাটি বলছে, মিয়ানমারে সামরিক বাহিনীর হামলায় নিহত তাদের দুই কর্মী সম্প্রতি নতুন বাবা হয়েছিলেন। তারা উভয়েই শিশু শিক্ষা নিয়ে কাজ করতেন। সংস্থাটির দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, উভয় কর্মীই মানবিক কাজে অংশগ্রহণের পর বাড়িতে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে সেনাবাহিনীর হামলা ও হত্যাকাণ্ডের শিকার হন তারা।

সেভ দ্য চিলড্রেনের প্রধান নির্বাহী ইঙ্গার আশিং বিবৃতির মাধ্যমে বলেছেন, ত্রাণ কর্মীসহ নিরীহ জনগণের বিরুদ্ধে সহিংসতা অসহনীয় এবং কাণ্ডজ্ঞানহীন। এই আক্রমণ আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনকে লঙ্ঘন করেছে। এটি কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়; মিয়ানমারের জনগণকে ক্রমবর্ধমান হামলায় লক্ষ্যবস্তু করা হচ্ছে। আর তাই অবিলম্বে এসব ঘটনার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়া ভীষণই প্রয়োজন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে