আনিছ আহম্মদ হানিফ, চাটখিল প্রতিনিধিঃ নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নে ছোট ছেলে তার স্ত্রী ও সন্তানদের নামে সম্পত্তি লিখে দেওয়ায় বৃদ্ধ আবদুল মান্নানের মৃতদেহ দাফন করতে বাঁধা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে তার অন্য সন্তানদের বিরুদ্ধে।

অবশেষে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের হস্তক্ষেপে ২২ ঘন্টা পর মঙ্গলবার (২২ মার্চ) সন্ধ্যায় বৃদ্ধের মৃতদেহ দাফন করা হয়েছে। ঘটনাাটি ঘটেছে উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের বানসা গ্রামের পশ্চিম হাজি বাড়িতে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আবদুল মান্নান (৮০) কয়েক বছর আগে তার ছোট ছেলে আবুল কালামের স্ত্রী জাহানরা বেগম ও সন্তানদের নামে ৩৯ শতাংশ জমিন রেজিষ্ট্রি করে লিখে দেন। এই নিয়ে তার অন্য ২ ছেলে ও ২ মেয়ের সাথে তার চরম বিরোধ সৃষ্টি হয়।

গত সোমবার (২১ মার্চ) রাত ৮ টার দিকে বাধ্যর্ক জনিত রোগে বৃদ্ধ আবদুল মান্নানের মৃত্যু হলে তার অপর ২ ছেলে ও ২ মেয়ে এবং নাতী নাতনীরা তার লাশ দাফনে বাঁধা দেয়।

বিলম্বে দাফন হচ্ছে কেন তা জানতে চাইলে জাহানারা বেগমের ভাই আরমান পাপ্পু বলেন ,কিছুটা সমস্যা হয়েছে, তা সমাধানের আশ্বাসে মরহুমের দাফন করা হয় এবং আগামী কয়েকদিনের মধ্যে বাহালুল চেয়ারম্যান সহ ২নং ওয়ার্ডের গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে নিয়ে যে ভাবে সুন্দর হয় সে ভাবে মরহুম মান্নানের সম্পত্তির সমাধান করা হবে।

পরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মেহেদি হাসান বাহালুল এবং গোলাম সরোয়ার, সালা উদ্দিন মেম্বার, বেল্লাল মাঝি, সাবেক মেম্বার আবুল খায়ের, বেল্লাল সহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিদের হস্তক্ষেপে এবং বিষয়টি সমাধানের আশ্বাসে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬ টায় মৃতদহের জানাযা শেষে দাফন করা হয়। ইউপি চেয়ারম্যান বাহালুল ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বিষযটি আপাতত সমাধান করা হয়েছে এবং মৃতদেহ দাফন করা হয়েছে । পরবর্তীতে সবাইকে নিয়ে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করবো।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে