টাচ নিউজ ডেস্ক: ফরিদপুরের সালথা উপজেলায় নিজের মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে বাবাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (৩ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাতে এ গ্রেপ্তার করা হয় তাকে।

পরিবার ও সালথা থানা সূত্রে জানা যায়, অভিযুক্ত ব্যক্তি মোট তিনটি বিয়ে করেছে। প্রথম স্ত্রীর গর্ভে দুটি কন্যাসন্তান জন্ম নেয়। বড় মেয়েকে যৌন হয়রানি করলে দুই মেয়ে তাদের নানার বাড়ি চলে যায়। পরে ঢাকায় একটি গার্মেন্টসে চাকরি নেয় সে। কিছুদিন পর ছোট মেয়ে বাবার বাড়ি চলে আসে। এরপর থেকে ওই বাড়িতেই থাকত মেয়েটি।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ৩০ জুলাই রাত ১১টার দিকে অভিযুক্ত ব্যক্তি ছোট মেয়েকে ধর্ষণ করে। পরে একাধিকবার ঘুমের ওষুধ খাইয়ে মেয়েকে অচেতন করে ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে মেয়েটি বিষপান করলে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করে পালিয়ে যায় ওই ব্যক্তি। পরে বড় বোন ও মায়ের মাধ্যমে হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নিয়ে নানা বাড়ি যায় মেয়েটি।

মেয়েটির মা বাদী হয়ে সালথা থানায় একটি অভিযোগ করেন। অভিযোগের সূত্র ধরেই সালথা থানা পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।

এ বিষয়ে সালথা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসিকুজ্জামান বলেন, ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত বাবাকে আটক করে ফরিদপুর আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। মেয়েটিকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

একে//

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে