টাচ নিউজ ডেস্ক: আজ ৬ সেপ্টেম্বর, কিংবদন্তি সালমান শাহের ২৪তম মৃতুবার্ষিকী। ১৯৯৬ সালের এই দিনে রহস্যজনক মৃত্যু হয় তার। দীর্ঘ ২৪ বছর পার হলেও অমর এই নায়কের মৃত্যু রহস্য আজও উদ্ঘাটন হয়নি। সালমান শাহ বাংলাদেশের ১৯৯০-এর দশকের শ্রেষ্ঠ নায়ক। তার প্রকৃত নাম শাহরিয়ার চৌধুরী ইমন।

১৯৭১ সালে ১৯ সেপ্টেম্বর সিলেট জেলার জকিগঞ্জ উপজেলায় জন্মগ্রহণ করেন। খুলনার বয়রা মডেল হাইস্কুলে পড়ালেখা শুরু করেন এবং একই স্কুলে চিত্রনায়িকা মৌসুমী ছিলেন তার সহপাঠী।  ১৯৮৭ সালে ধানমন্ডি আরব মিশন স্কুল থেকে এসএসসি, আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ থেকে এইচএসসি ও ধানমন্ডির মালেকা সায়েন্স কলেজ থেকে বি.কম. পাস করেন।

১৯৮৫ সালে বিটিভির আকাশ ছোঁয়া নাটক দিয়ে অভিনয়ের যাত্রা শুরু করেন। উল্লেখযোগ্য নাটক দেয়াল, সব পাখি ঘরে ফিরে , সৈকতে সারস, নয়ন, স্বপ্নের পৃথিবী, পাথর সময়, ইতিকথা। নয়ন নাটকটির জন্য বাচসাস পুরস্কার লাভ করেন। এর মাঝে মিল্ক ভিটা, জাগুয়ার কেডস, গোল্ড স্টার টি, কোকা-কোলা, ফানটার বিজ্ঞাপনচিত্রেও কাজ করেন।

১৯৯৩ সালে সোহানুর রহমান সোহান পরিচালিত কেয়ামত থেকে কেয়ামত দিয়ে সিনেমায় অভিনয় শুরু করেন। এই ছবির জন্য পারিশ্রমিক পান ২৫ হাজার টাকা। একই ছবিতে নায়িকা মৌসুমী ও গায়ক আগুনের অভিষেক হয়। পরে মৌসুমীর বিপরীতে আরও তিনটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ছবি তিনটি- অন্তরে অন্তরে, স্নেহ ও দেনমোহর।

২য় সিনেমা ‘তুমি আমার’ দিয়ে শাবনূরের সাথে জুটিবব্ধ হয় এই মহা নায়ক, এই জুটি মোট ১৪টি ছবিতে অভিনয় করে সবগুলোই ছিলো ব্যবসা সফল। সালমানের নায়িকাদের মধ্যে আরও ছিলেন সোনিয়া, বৃষ্টি, শিল্পী, কাঞ্চি, শ্যামা, সাবরিনা, শাহনাজ। চারবছরের চলচ্চিত্রে অভিনয় জীবনে সর্বমোট ২৭টি চলচ্চিত্র অভিনয় করেন এবং সবকয়টিই ছিল ব্যবসাসফল। পর্দায় তাঁর পোশাক-পরিচ্ছদ, সংলাপ বলার ধরন, অভিনয়-দক্ষতায় জনপ্রিয় হয়ে উঠেন।

১৯৯৫ সালে মুক্তি পাওয়া ‘স্বপ্নের ঠিকানা’ ছিলো বাংলা চলচ্চিত্রের ২য় সর্বাধিক আয় করা সিনেমা। তৎকালীন সময়ে ছবিটি ১৯ কোটি টাকা ব্যবসা করে।

সালমানের শেষ ছবি বুকের ভেতর আগুন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে