টাচ ুনিউজ ডেস্ক:

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে হওয়া কোভিড-১৯ নামের এই নতুন রোগে এশিয়ার বিভিন্ন দেশ এখন বিপদে পড়েছে। একদিকে ভয় দেখাচ্ছে করোনাভাইরাস, অন্যদিকে চোখ রাঙাচ্ছে অর্থনৈতিক প্রতিবন্ধকতা।

কোভিড-১৯ রোগে মৃত ব্যক্তির সংখ্যা শুধু চীনেই ১ হাজার ৬০০ ছাড়িয়ে গেছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত দেশটিতে নতুন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যা ৬৮ হাজার পার হয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সার্স ও মার্সভাইরাসও ছিল একধরনের করোনাভাইরাস। কিন্তু সেই দুটির তুলনায় নতুন করোনাভাইরাসে সংক্রমণের হার বেশি এবং এটি ছড়াচ্ছেও দ্রুত। যদিও এখন পর্যন্ত পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে, নতুন এই রোগে মৃত্যুর হার তুলনামূলক কম; কিন্তু দ্রুত ছড়িয়ে পড়ায় কোভিড-১৯ আতঙ্ক ছড়াচ্ছে ব্যাপক। এরই মধ্যে এ রোগে আক্রান্ত হয়ে এশিয়ার বাইরে ইউরোপে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে।

এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে নতুন করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে সবচেয়ে কঠোর প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে সিঙ্গাপুর। সার্স সংক্রমণের তিক্ত অভিজ্ঞতা থেকে এবার জোরেশোরে পদক্ষেপ নিয়েছে দেশটি। গত ১৪ দিনে যেসব ব্যক্তি চীনে ছিলেন, তাঁদের সিঙ্গাপুরে ঢোকার ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। হাসপাতাল বা বিভিন্ন অফিসে ঢোকার ক্ষেত্রে বাধ্যতামূলকভাবে সবার শরীরের তাপমাত্রা মেপে দেখা হচ্ছে। বিমান ও সমুদ্রবন্দর এলাকায় নেওয়া হয়েছে পৃথক সতর্কতামূলক ব্যবস্থা। এমনকি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ে যাতে গুজব না ছড়াতে পারে, তার জন্য নতুন আইন প্রণয়ন করা হয়েছে।

জাপানও নিয়েছে একই রকম পদক্ষেপ। কিন্তু আর্থিকভাবে ধনী দেশগুলো যেভাবে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নিতে পারছে, সেভাবে পারছে না থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়ার মতো দেশগুলো। এর সঙ্গে অর্থনৈতিক বিষয়ও যুক্ত হয়ে পড়েছে। এশিয়ায় চীনের অর্থনৈতিক ও কূটনৈতিক শক্তি অগ্রাহ্য করার মতো নয়। অনেক দেশের সমৃদ্ধিই চীনের সঙ্গে বাণিজ্য সম্পর্কের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। যেমন: থাইল্যান্ডের মোট জিডিপির এক-দশমাংশ আসে পর্যটন থেকে। আর এই পর্যটকদের একটি বিরাট অংশ আসে চীন থেকে। একই অবস্থা ইন্দোনেশিয়ায়। তাই চাইলেও দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যে ভাটার টানের আশঙ্কায় কঠোর ব্যবস্থা নিচ্ছে না দেশগুলো।

ওদিকে চীনও চোখ রাঙাচ্ছে। বেশ কয়েকটি দেশের বিরুদ্ধে ভ্রমণনিষেধাজ্ঞা দেওয়ার অভিযোগ তুলে চীন বলছে, এর পরিণাম ভালো হবে না! এর বাজে প্রভাব কূটনৈতিক সম্পর্কে পড়বে বলেও হুঁশিয়ার করে দিচ্ছে সি চিন পিংয়ের সরকার। সব মিলিয়ে এশিয়ার দেশগুলো পড়েছে শাঁখের করাতে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে