টাচ নিউজ ডেস্ক: প্রশাসনের কর্মকর্তাদের মধ্যে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার সংখ্যা দিনে দিনে বাড়ছে। এ পর্যন্ত মোট ২১১ জন কর্মকর্তা সংক্রমিত হয়েছেন। এর মধ্যে অর্ধেকই মাঠ প্রশাসনে চাকরি করছেন। সংক্রমিত কর্মকর্তাদের তালিকায় তথ্যসচিবসহ তিনজন সচিব আছেন। করোনায় মারা গেছেন বর্তমান ও সাবেক মিলিয়ে ১১ জন কর্মকর্তা।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ও প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তাদের সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে। সংক্রমিত কর্মকর্তাদের মধ্যে ২০৯ জনই বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা। দুজন অন্য ক্যাডার থেকে সচিব ও যুগ্ম সচিব হন।
সংক্রমিত ১০ জন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। অন্য কর্মবর্তারা হোম আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১১৩ জন।

জানা গেছে, যাঁরা সংক্রমিত হয়েছেন, তাঁরা প্রায় সবাই দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। এর মধ্যে ১০৪ জন কর্মকর্তা মাঠপ্রশাসনে কাজ করছেন। যাঁদের মধ্যে জেলা প্রশাসক, অতিরিক্তি জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার রয়েছেন।

করোনার প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তারা সারা দেশের মানুষের মধ্যে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করা, ত্রাণ বিতরণ, হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করাসহ বিভিন্ন কাজ করে আসছেন। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাসহ বিভিন্নভাবে এসব কাজ করতে গিয়ে মূলত নিজেরাই করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হচ্ছেন।

করোনাভাইরাসে সংক্রমিত গাজীপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) আবুল কালাম জানালেন, তিনি নিয়মিত অফিস করতেন। ধারণা করছেন, সেখান থেকেই কোনোভাবে সংক্রমিত হয়েছেন।

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের ইউএনও কাজী লুতফুল হাসান ১৬ জুন থেকে করোনায় সংক্রমিত। এখন তিনি হোম আইসোলেশনে  আছেন। প্রথম আলোকে তিনি বলেন, ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা, ত্রাণ বিতরণ, তদন্তকাজে যাওয়াসহ বিভিন্ন ধরনের কাজ করতে হয় তাঁকে। এর মাধ্যমেই হয়তো সংক্রমিত হয়েছেন।

সংক্রমিত অন্য কর্মকর্তাদের মধ্যে ১০৭ জন সচিবালয়সহ বিভিন্ন দপ্তরে কাজ করেছেন। তাঁরাও নিয়মিত অফিস করছিলেন। একাধিক মন্ত্রী ও সচিবের একান্ত সচিবও সংক্রমিত হয়েছেন। এই দপ্তরগুলোতে তুলনামূলক অন্যদের যাওয়া-আসা বেশি থাকে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে