টাচ নিউজ ডেস্কঃ শুরু হয়েছে উচ্চ মাধ্যমিকের ভর্তি প্রক্রিয়া। ভর্তিচ্ছুর তুলনায় আসন সংখ্যা বেশি থাকায় সংকট হবে না বলে দাবি আন্তঃশিক্ষাবোর্ডের। তবে মানসম্মত কলেজের সংকট থেকেই যাচ্ছে।

শিক্ষার্থী না পেয়ে শূন্য থাকতে পারে ৫ লাখ আসন। সমস্যা সমাধানে শিক্ষার্থীদের নিজস্ব এলাকার প্রতিষ্ঠানে ভর্তির পরামর্শ দেন এক গবেষক। একইসঙ্গে সব প্রতিষ্ঠানকেই মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করতে হবে বলে জানান তিনি।

সংক্ষিপ্ত সিলেবাসের পরীক্ষায় এবার রেকর্ড সংখ্যক জিপিএ-৫ সহ এসএসসি পাস করেছে ২০ লাখ শিক্ষার্থী। দেশের সাধারণ, মাদরাসা ও কারিগরি মিলিয়ে উচ্চ মাধ্যমিকে আসন সংখ্যা প্রায় ২৬ লাখ। তাই এবার কোনো শিক্ষার্থীই ভর্তি নিয়ে আসন সংকটে পড়বেন না। তবে শিক্ষার্থীদের পছন্দের তালিকার প্রতিষ্ঠান হাতেগোনা কয়েকটি।

আন্তঃশিক্ষাবোর্ডের সমন্বয়ক অধ্যাপক নেহাল আহমেদ বলেন, আমাদের সিট সংখ্যা প্রচুর আছে, শিক্ষার্থীদের ভর্তিতে কোনো সমস্যা হবে না। অনেকে আছে যারা নির্দিষ্ট কলেজে ভর্তি হতে চায়, সেখানে হয়ত প্রতিযোগিতা থাকবে। তবে সিট যেহেতু আছে অন্য জায়গাতে ভর্তি হতে সমস্যা হবে না।
একদিকে ভালো কলেজগুলোতে চাপ বাড়ছে অন্যদিকে ফাঁকা থাকতে পারে ৫ লাখ আসন। এ সংকট উত্তরণে ভর্তিচ্ছুদের নিজস্ব এলাকার কলেজে ভর্তির পাশাপাশি মানসম্মত প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার পরামর্শ দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক মুজিবুর রহমান। বলেন, স্কুল এবং কলেজ নির্দিষ্ট এলাকার মধ্যে ভর্তি যদি আমরা আনতে পারি, সুষ্ঠুভাবে সুসম্পন্ন করতে পারি তাহলে আর এ সমস্যাটা থাকবে না। বেসরকারি যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো আছে সেখানে বদলির ব্যবস্থা করে নিতে পারি চক্রাকারে, তাহলে এ সমস্যা আর থাকবে না।

আর মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর বলছে, ফলাফলে পিছিয়ে থাকা প্রতিষ্ঠানের মানোন্নয়নে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ গোলাম ফারুক বলেন, কলেজগুলোর মধ্যে একটা সমতা নিয়ে আসার চেষ্টা করছে সরকার। সরকার অন্যান্য দিকগুলোও দেখছে, যেমন ধরুন শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের বিষয়টিও রয়েছে।

আগামী মার্চের শুরু থেকেই চলতি শিক্ষাবর্ষের উচ্চ মাধ্যমিকের ক্লাস শুরু হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে