টাচ নিউজ ডেস্কঃ প্রাথমিক পরিকল্পনা ছিল রামপাল কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের জন্য অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং ইন্দোনেশিয়ার মধ্যে কোনো একটি দেশ থেকে কয়লা আমদানি করা। পরে ইন্দোনেশিয়াকে চূড়ান্ত করে দেশটি থেকে কয়লা আমদানির প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছিল। কিন্তু হঠাৎই ইন্দোনেশিয়া জানিয়েছে, তারা আপাতত কয়লা রফতানি করবে না। এতে ওই বিদ্যুৎকেন্দ্রের কাজ দ্রুত শেষ করা গেলেও উৎপাদনে যাওয়া নিয়ে তৈরি হয়েছে সংশয়।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, কয়লার সংস্থান না হওয়ায় এখনই বিদ্যুৎকেন্দ্রটির উদ্বোধন করা সম্ভব হচ্ছে না। এখন নতুন করে কয়লার জন্য বিকল্প সংস্থান খোঁজা হচ্ছে। ওদিকে বিদ্যুৎকেন্দ্র চালুর জন্য প্রয়োজনীয় সঞ্চালন লাইন নির্মাণের কাজও কিছুটা বাকি। এতে বিদ্যুৎকেন্দ্রটি চলতি বছরের মার্চে উদ্বোধনের যে দিনক্ষণ ঠিক করা ছিল, তা অনিশ্চিত হয়ে পড়ল।

১৬ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ১৩২০ মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন দুই ইউনিট বিদ্যুৎকেন্দ্রটি দ্রুত উৎপাদনে নিয়ে আসতে জোর চেষ্টা ছিল বিদ্যুৎ বিভাগের। সে লক্ষ্যে প্রায় তিন থেকে চার চতুর্থাংশ কাজও দ্রুত শেষ করা হয়। গত ডিসেম্বরের মধ্যেই প্রথম ইউনিটের কাজ শেষ করতে সময়ও বেঁধে দেয় বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড-পিডিবি। বাকি কাজ শেষ করে আগামী মার্চের মধ্যে একটি ইউনিট চালুর পরিকল্পনা করা হয়। নির্ধারিত ডিসেম্বর মাস পেরিয়ে জানুয়ারির শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত প্রথম ইউনিটের কাজ শেষ হয়েছে ৮৯ শতাংশ ও দ্বিতীয় ইউনিটের ৫৭ শতাংশ।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, দায়িত্বে থাকা কয়েকজন শীর্ষ কর্মকর্তার করোনায় আক্রান্ত হওয়া ও প্রাণঘাতি ওই ভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতির উন্নতি হতে দেরি হওয়ায় নির্মাণ সামগ্রী সব পৌঁছায়নি। যে কারণে কাজে বিলম্ব হয়েছে।

বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, দেশে গ্যাস সংকটের কারণে বর্তমানে দুই হাজার মেগাওয়াট উৎপাদন সক্ষমতার বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ রয়েছে। তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) আমদানির মাধ্যমে এ সংকট মোকাবিলা নিয়েও রয়েছে অনিশ্চয়তা। যে কারণে এই কেন্দ্রটি দ্রুত চালুর পরিকল্পনা করেছিল বিদ্যুৎ বিভাগ।

এদিকে করোনার কারণে এই বিদ্যুৎকেন্দ্রে কিছু যন্ত্রাংশ সময়মত পৌঁছাতে পারেনি। যে কারণে কিছু কাজ বাকি রয়েছে। পাশাপাশি সঞ্চালন লাইনের কাজও শেষ হয়নি। এ প্রসঙ্গে বিদ্যুৎকেন্দ্রটি নির্মাণের দায়িত্বে থাকা বাংলাদেশ- ইন্ডিয়া ফ্রেন্ডশিপ পাওয়ার কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেড- বিআইএফপিসিএল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী আবসার উদ্দীন আহমেদ জানান, বিদ্যুৎকেন্দ্রটির দুই ইউনিটেরই প্রধান কাজগুলো শেষ হয়েছে। কিছু আনুষঙ্গিক কাজ এখন বাকি রয়েছে। যদিও তিনি বলেন, বাকি ১১ শতাংশ কাজ শেষ করে আগামী ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে প্রথম ইউনিট চালুর পরিকল্পনা রয়েছে।

দেশের ক্রমবর্ধমান বিদ্যুতের চাহিদা মেটাতে সুন্দরবন সংলগ্ন বাগেরহাটের রামপাল উপজেলার সাপমারি- কাটাখালী ও কৈর্গদাশকাঠী এলাকায় ১ হাজার ৮৩৪ একর জমির ওপরে কয়লাভিত্তিক রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়। সরকারের অগ্রাধিকার প্রকল্পের মধ্যে এটি একটি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে