টাচ নিউজ ডেস্কঃ ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি তার কট্টর সমর্থক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। শনিবার (৯ এপ্রিল) রাজধানী কিয়েভে এ দুই রাষ্ট্রনেতার মধ্যে বৈঠক হয়েছে বলে খবর দিয়েছে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স। আলোচনা শেষ হওয়ায় খুব দ্রুত ইউক্রেনে নতুন অর্থনৈতিক ও সামরিক সহায়তার প্যাকেজ ঘোষণা করতে পারেন বরিস জনসন।

গত সপ্তাহে ইউক্রেনের রাজধানীর আশপাশ থেকে রাশিয়া সৈন্য প্রত্যাহার করে নেওয়ার পর প্রথম বিদেশি নেতা হিসেবে কিয়েভ সফর করেছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের কার্যালয়ের উপপ্রধান আন্দ্রি সিবিহা ফেসবুকে দেওয়া এক বার্তায় বলেছেন, জেলেনস্কির সঙ্গে একক বৈঠকের মাধ্যমে জনসনের কিয়েভ সফর শুরু হয়েছে। জেলেনস্কির কার্যালয়ের প্রকাশিত একটি ছবিতে দেখা যায়, দুই রাষ্ট্রনেতা টেবিলে মুখোমুখি বসে আলোচনা করছেন।

ডাউনিং স্ট্রিটের একজন মুখপাত্র বলেছেন, ইউক্রেনীয় জনগণের প্রতি সংহতি প্রদর্শনের জন্যই জেলেনস্কির সঙ্গে দেখা করেছেন জনসন।

ওই মুখপাত্র আরও বলেন, তারা ইউক্রেনে ব্রিটেনের দীর্ঘমেয়াদী সহায়তা নিয়ে আলোচনা করবেন। এর পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর আর্থিক ও সামরিক সহায়তার একটি নতুন প্যাকেজ নির্ধারণ করবেন।

জেলেনস্কির টেলিগ্রাম চ্যানেলে জনসনকে ‘রুশ আগ্রাসনের সবচেয়ে নীতিগত বিরোধীদের অন্যতম, রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ এবং ইউক্রেনে প্রতিরক্ষামূলক সহায়তাদানকারী একজন নেতা’ হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে।

যদিও কিয়েভে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের সফরের বিষয়ে আগাম কোনো ঘোষণা দেওয়া হয়নি। কিয়েভের শহরতলী থেকে রাশিয়া সৈন্য সরিয়ে ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে নেওয়ার পর দেশটি সফরে গেছেন ব্রিটিশ সরকারের এই প্রধানমন্ত্রী।

এর আগে শনিবার টুইট বার্তার মাধ্যমে জনসন বলেছিলেন, যুক্তরাজ্য ইউক্রেনে আরও প্রতিরক্ষামূলক অস্ত্র-সরঞ্জাম পাঠাবে এবং পুতিনের ব্যর্থতা নিশ্চিত করতে রাশিয়ার অর্থনীতির প্রতিটি স্তম্ভ লক্ষ্য করে জি-৭ অংশীদারদের সঙ্গে একত্রে কাজ করবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে