মাজহারুল ইসলাম বিপিএম,  পিপিএম (বার): বৃষ্টি থেমে গেলে ছাতাটাকেও বোঝা মনে হয়। কালি ফুরিয়ে গেলে কলমটাও আবর্জনার ঝুড়িতে জমা হয়। বাসি হয়ে গেলে প্রিয়জনের দেয়া ফুলটাও পরদিন ডাস্টবিনে পাওয়া যায়।

পৃথিবীর নিষ্ঠুরতম সত্য হলো আপনার উপকারের কথা মানুষ বেশিদিন মনে রাখবে না। জীবনের সবচেয়ে নিদারুণ বাস্তবতা হলো, কার কাছে আপনি কতদিন প্রায়োরিটি পাবেন, সেটা নির্ভর করবে কার জন্য কতদিন কিছু একটা করার সামর্থ্য আছে তার উপর।

এই বাস্তবতা আপনি মানলেও সত্যি, না মানলেও সত্যি। আজ সকালে যে পত্রিকার দাম ১০ টাকা, একদিন পর সে একই পত্রিকার ১ কেজির দাম ১০ টাকা। হাজার টাকা খরচ করে একাডেমিক লাইফে বছরের শুরুতে যে বইগুলো গুরুত্ব দিয়ে কিনেন, বছর শেষে সেই বইগুলোই কেজি মাপে বিক্রি করে দেন।সময় ফুরিয়ে গেলে এভাবেই মূল্য কমতে থাকে সবার, সবকিছুর। আমরা আপাদমস্তক স্বার্থপর প্রাণী। ভিখারিকে ২ টাকা দেয়ার আগেও মানুষ চিন্তা করে কতটুকু পূণ্য অর্জন হবে। বিনা স্বার্থে কেউ ভিক্ষুককেও ভিক্ষা দেয় না৷
এতকিছুর পরও আমাদের উচিত ভাল মানুষদের সহযোগিতা করা,সবার সাথে একটু হেসে কথা বলা।রাগটাকে কমাই,অহংকারকে কবর দেই।

পৃথিবীকে চিনতে চাও, তাহলে খালি পকেটে রাস্তায় বের হয়ে দেখুন? কুকুরটাও পিছু নেবেনা মানুষ তো অনেক দূরের কথা। যদি কেউ তোমাকে সন্দেহ করে তাহলে দুঃখ পেয়ো না। মনে রাখবে সবাই সোনা বা হীরাকে সন্দেহ করে। সেটা আসল কিনা। কিন্তু লোহাকে সন্দেহ করে না। মেধাবী হয়ে গর্ব করার কিছু নেই শয়তান কিন্তু মেধাবী হয়।সততা ও মনুষ্যত্ব না থাকলে সে মেধা ঘৃণিত। সামনে আগানোর জন্য তোমার সব জানার প্রয়োজন নেই,শুধু সামনে পা বাড়াও ।একে একে সব জানতে পারবে । দরকার ছাড়া যে পাশে থাকে সেই আপনজন। খালি পকেট তোমাকে হাজারো শিক্ষা দেবে। আর ভরা পকেট তোমার জীবনকে নষ্ট করার হাজারো পথ প্রদর্শন করবে। সৎ লোক সাতবার বিপদে পড়লে উঠে দাঁড়ায়,অসাধু লোক বিপদে পড়লে একবারে নিপাত হয়ে যায়। ব্লেড খুব ধারালো কিন্তু গাছ কাটা যায় না। কুঠার খুব শক্তিশালী কিন্তু চুল কাটা যায় না। তেমনি ঠিক প্রত্যেক বস্তু তার নিজ কর্ম ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। প্রত্যেকটা মানুষের রয়েছে অতুলনীয় প্রতিভা। তাই অন্যের সাথে নিজেকে মাপতে যেওনা। নিজের যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা কে মূল্যায়ন করো। কখনো সেই মানুষটির জন্য কাঁদবেন না। যে আপনার আবেগ অনুভূতি ও বিশ্বাসের মর্যাদা কখনো দেয়নি। সব কথার জবাব দিতে নেই। সম্মানের ক্ষেত্রে কখনো কখনো নীরব থাকতে হয় ।সব যুদ্ধে এগিয়ে যেতে নেই।জয়ের জন্য কখনো কখনো পিছিয়ে আসতে হয়। সব সময় সব সম্পর্ক আঁকড়ে ধরতে নেই। সম্পর্ক বাঁচাতে কখনো কখনো দূরে থাকতে হয়। পথের শেষে দেখি, অনেক হিসাব বাকি। সারা জীবন যা করেছি, তা পুরোটাই ফাঁকি।পর স্ত্রী আর পর পুরুষ কখনো আপন হয় না।এগুলো হলো, মরীচিকা, এগুলোর পেছনে ছুটে নিজের পরিবার ও নিজেকে ধ্বংসস্তূপে পরিণত করবেন না। ভালবাসার মানুষগুলো হয়তো সব সময় আই লাভ ইউ বলবে না। কিন্তু কি করছো ?কোথায় আছো?

সাবধানে যেও এগুলো অবশ্যই বলবে।পশুপাখিরাও মানুষের ভালোবাসা বুঝতে পারে কিন্তু আফসোস মানুষ মানুষের ভালোবাসা বুঝতে পারে না। তাইতো অবহেলা করে। চিন্তিত হবেন না, আপনার জীবনেও ভালো সময় আসবে। দুঃখের সময়টাও চলে যাবে, ইনশাআল্লাহ। চুপ থাকলে মূর্খকেও জ্ঞানী মনে মনে হয়। কিন্তু বেশি কথা বললে জ্ঞানীকে মূর্খ মনে হয়। দেশের শ্রেষ্ঠ মেধাবী গুলো আপনি ক্লাসের শেষ বেঞ্চের পেতে পারেন।দেরিতে হোক তবুও নিজের পায়ে দাঁড়াও, কারন মানুষ সবার শেষে তোমার যোগ্যতা টায় দেখবে। যা পেয়েছো তা হারিও না,
যা হারিয়েছে তা পেতে যেওনা। যা পাও নি, তারা কখনো তোমার ছিল না ।বিজয়ের আসল পরিচয় হলো, হেরে যাওয়ার পর আবার চেষ্টা করা। কখনো কারো কষ্ট কে ছোট করে দেখোনা ।কারণ যার কষ্ট তার কাছে অনেক বড়। নিজের যত্ন নেও ।অন্যের খুশির জন্য পরিশ্রম করতে গিয়ে ভুলে যেও না তুমি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। স্রোতের বিপরীতে হেঁটে দেখুন কতজন পাশে থাক।স্রোতের দিকে দিকে তো কচুরিপানাও ভাসে। যে ঠকায় সেও অন্য জায়গায় ঠকে । যে কাদায় সে অন্য জায়গায় কাঁদে। সবার বিচার হবে শুধু সময়ের অপেক্ষা। তার পিছে দৌড়ায় না, যে তোমায় এড়িয়ে চলে। গুরুত্ব না, পেলে পশুপাখিরাও পোষ মানে না। আর আমরা তো মানুষ।

আত্মসম্মান থেকে বড় আর কিছু নেই। কেউ তোমাকে একবারের জন্য ছোট করলেও তাকে চিনে রেখোএবং তার থেকে দূরে থাকো। কারণ প্রশ্রয় পেলে সেই একই কাজ বার বার করবে। অপর কে ইমপ্রেস করার চেষ্টা না করে নিজেকে ইম্প্রুভ করো,সেটাই অনেক ভালো। বলার কিছুই নেই ,যে যেরকম করবে ,ফলটা সেই রকমই পাবে ।যে কখনো আমার ছিলনা, তাকে সবসময় হারানোর ভয় পেয়েছি ।ভালো মনের মানুষ গুলোই আজকে বোকা বলে পরিচিত। একা ভালো আছি বললেও, দিন শেষে এমন একজন মানুষের প্রয়োজন হয়। যাকে মন খুলে সমস্ত কথা বলা যায় ।মানুষের হাতের ছুরির আঘাতের চেয়েও মানুষের মুখের কথা অনেক ধারালো। আপনজন হঠাৎ করে যখন পর হয়ে যায়,তখন সে শত্রুর চেয়েও বেশি ভয়ঙ্কর হয়। ভেবে দেখুন আপনি সবচেয়ে বেশি কষ্ট নিজেকে দিয়েছেন, অন্যকে খুশি করতে গিয়ে। সন্তুষ্ট আল্লাহকে করুন।দুনিয়ার সুখশান্তি নিজে থেকে আপনার কাছে চলে আসবে।

আপনি যে পজিশনে আছে সেটা অন্যের কাছে স্বপ্ন। হতাশ না হয়ে শুকরিয়া করুন।

লেখকঃ অফিসার ইনচার্জ, যাত্রাবাড়ী থানা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে