পাথরঘাটা প্রতিনিধি: বরগুনার পাথরঘাটায় বিপনীবিতানে মেয়াদোত্তীর্ন সেমাই রাখায় ও বিউটি পার্লার খোলা রাখার দায়ে জরিমাণা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। শনিবার (২৩ মে) দুপুর পৌনে ১টায় জড়িমানা আদায় করেন ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং পাথরঘাটা উপজেলা নির্বহী অফিসার মো.হুমায়ুন কবির।

মেয়াদোত্তীর্ন সেমাই রাখার দায়ে পূর্ব বাজারের মো.সাগর মিয়াকে ১ হজার টাকা এবং তার মেয়াদউত্তীর্ণ সেমাইয়ের সরবরাহকারি রিফাত স্টোরকে ১হাজার টাকা জড়িমানা করা হয়। একই সময় খায়রুল স্টোরে মেয়াদোত্তীর্ন সেমাই রাখার দায়ে ২ হাজার টাকা জড়িমানা আদায় করা হয় এবং মেয়াদউত্তীর্ণ সেমাই কেরোসীন দিয়ে আগুনে পুড়িয়ে দেয়া হয়।

এর আগে লকডাউন অমান্য করে কেজি স্কুল রোডের সাজঘর বিউটি পার্লার খুলে কাজ করার দায়ে ওই পার্রালকে ১হাজার টাকা জড়িমানা করা হয় এবং দুই কাস্টমারকে ৪ শ টাকা জড়িমানা করা হয়। এছাড়াও এফজি বিউটি পার্লারকে ১হাজার টাকা জড়িমানা করা হয়।

একইভাবে লকডাউন নিশি।চত করতে কসমেটিকস্, মোদি-মনহরী, গার্মেন্টস,জুতা, টেইলার সহ নানা বিপনী বিতানেও অভিযান চালানে হয়। এদিকে বেলা ১২টার দিকে লকডাউন ঘোষিত জুতাপট্টি করোনা এলাকার আরও একটি দোকান বন্ধ করে দেয়া হয়।

পাথরঘাটা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো.হুমায়ুন কবির বলেন, খাদ্যদ্রব্যে ভ্যাজাল কিংবা মেয়াদোত্তীর্ন কোনো পন্য পাওয়া গেলে কোনো ছাড় নেই।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, কোভিট-১৯ করোনা কালিন দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত নৌবাহীনির অফিসার, থানা পুলিশ, সাংবাদিক সহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে